ঢাকায় খাদ্য ও কৃষিপণ্যের আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী শুরু ২৭ মার্চ

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে খাদ্যপণ্য ও কৃষিজাত উপকরণের আন্তর্জাতিক চারটি প্রদর্শনী শুরু হতে যাচ্ছে আগামী ২৭ মার্চ। ঢাকায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় এ প্রদর্শনী চলবে ৩০ মার্চ পর্যন্ত।

প্রদর্শনীগুলো হলো- চতুর্থ ফুড অ্যান্ড এগ্রো বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল এক্সপো ২০১৯; চতুর্থ এগ্রোক্যাম বাংলাদেশ এক্সপো ২০১৯, চতুর্থ ইন্টারন্যাশনাল পোল্ট্রি অ্যান্ড লাইভস্টোক বাংলাদেশ এক্সপো ২০১৯; চতুর্থ এগ্রোক্যামিকেল বাংলাদেশ এক্সপো ২০১৯ এবং চতুর্থ ইন্টারন্যাশনাল প্রিটিং অ্যান্ড প্যাকেজিং এক্সপো ২০১৯।

আন্তর্জাতিক আয়োজক সংস্থা সেমস গ্লোবাল এ প্রদর্শনীর আয়োজন করছে। জার্মানি, জাপান, ইতালি, সংযুক্ত আরব আমিরাত, থাইল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, চীন, ভিয়েতনাম, ভারত ও বাংলাদেশের খাদ্যপণ্য, কৃষিজাত উপকরণ উৎপাদন এবং প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পের খ্যাতনামা প্রায় ১৩২টি প্রতিষ্ঠান প্রদর্শনীতে ১৫০টি স্টলে অংশগ্রহণ করবে।

সোমবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সেমস গ্লোবালের ইউএসএ ও এশিয়া প্যাসিফিকের গ্রুপ সভাপতি ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহেরুন এন ইসলাম, সেমস বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক তানভীর কামরুল ইসলাম, হেড অব মার্কেটিং অ্যান্ড কমিউনিকেশন নায়েম শরিফ ও সেমস গ্লোবালের সিনিয়র ম্যানেজার আসিফ আরমান।

মেহেরুন এন ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের কৃষিকে টার্গেট করে এ প্রদর্শনী। আমাদের খাদ্য নিরাপদ কি না তা এ প্রদর্শনীর মাধ্যমে তুলে ধরা হবে।

একসময় আমাদের দেশের কৃষক মাঠে যে ফসল ফলাতেন তার সবটুকু বাজারে বিক্রয় করতেন, কিন্তু বর্তমানে আধুনিক পদ্ধতিতে কৃষক প্রচুর ফসল উৎপাদন করছেন। ফলে ফসলের যে সারপ্লাস তা ম্যানেজমেন্ট করতে হবে। আমাদের এই প্রদর্শন এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে শিক্ষিত সবাইকে চাকরি দেয়া সম্ভব নয়। তাই অবশ্যই অনেককে উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করতে হবে। আমাদের এ প্রদর্শনীতে কীভাবে ছোট আকারে উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করা যায় সেসব বিষয়ে হাতেকলমে বুঝিয়ে দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, সেমস গ্লোবাল ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠার পর গত ২৫ বছরের বেশি সময় দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বহুজাতিক প্রদর্শনীর আয়োজক প্রতিষ্ঠান হিসেবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।