‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার অন্তরায়’

নিজস্ব প্রতিবেদক : সম্প্রতি পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্বাধীন সাংবাদিকতায় বাধা হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছে জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি-ডিআরইউ। সাংবাদিকদের মতামত, পরামর্শ ও সুপারিশ উপেক্ষা করে এই আইন পাস করায় নিন্দা জানিয়েছেন ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ।

সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন খান এ নিন্দা জানান।

স্বাধীন সাংবাদিকতার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে এমন সব ধারা-উপধারা বহাল রেখে আইনটি পাস করায় বিবৃতিতে উদ্বেগও জানিয়েছে ডিআরইউ।

বিবৃতিতে ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘বহুল আলোচিত এই আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর থেকেই সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন সুনির্দিষ্ট কিছু ধারায় আপত্তি জানিয়ে আসছিল। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রিদের সঙ্গে বৈঠক করে আপত্তিকর ধারাগুলো বাদ দেয়ার দাবিও জানানো হয়েছিল। বিলটি সংসদে উত্থাপনের পর সংসদীয় কমিটিতেও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ সুনির্দিষ্ট সুপারিশ দেন।’

মত প্রকাশের অন্তরায় ও স্বাধীন সাংবাদিকতার বাধা হতে পারে এমন কোনও ধারা আইনে থাকবে না বলে সরকারের পক্ষ থেকে বারবার আশ্বাস দেয়া হয়েছিল- উল্লেখ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘কিন্তু আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করলাম, সাংবাদিকদের সকল মতামত ও সুপারিশ উপেক্ষা করেই জাতীয় সংসদে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পাস করা হলো। এতে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’

‘বিশেষ করে আইসিটি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিল করে সেগুলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিভিন্ন ধারায় ছড়িয়ে দেয়া এবং বৃটিশ আমলের অফিসিয়াল সিক্রেটস আইন অন্তর্ভূক্ত করা, বিনা পরোয়ানায় গ্রেপ্তার ও ডিজিটাল ডিভাইস জব্দ করার বিধান রাখায় সাংবাদিকদের নিগৃহীত হওয়ারও আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।’


ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের এসব বিধান মৌলিক মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ এমনকি এ আইন তথ্য অধিকার আইনের সঙ্গেও সাংঘর্ষিক বলে বিবৃতিতে তুলে ধরে ডিআরইউ।

সাংবাদিক সমাজের দেয়া সুপারিশগুলো আমলে নিয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন এবং আপত্তিকর ও নিবর্তনমূলক ধারাসমূহ বাতিল করতে সরকারের প্রতি জোরালো দাবি জানান ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ।

Inline
Inline