ডাবল সেঞ্চুরি করে মুশফিকের যতো রেকর্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক : মিরপুর টেস্ট খেলতে নামার আগে গত ২৩ ইনিংসে কোনো সেঞ্চুরিই ছিল না মুশফিকুর রহিমের। দীর্ঘ অপেক্ষার পর গতকাল ম্যাচের প্রথম দিন সেঞ্চুরির দেখা পান বাংলাদেশের ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’ বলে খ্যাত মুশফিকুর রহিম। টেস্ট ক্যারিয়ারে মুশফিকের এটি ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। এই সেঞ্চুরিকে আজ ডাবল সেঞ্চুরিতে রুপ দেন তিনি। ২১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন বাংলাদেশের এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। এই রান করার পথে তিনি বল খেলেন ৪২১টি। চার মারেন ১৮টি, ছক্কা হাঁকান একটি।

ডাবল সেঞ্চুরি করায় মুশফিকের বেশ কয়েকটি রেকর্ড হয়েছে। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসাবে টেস্টে দুইটি সেঞ্চুরি করেছেন মুশফিক। এর আগে ২০১৩ সালের মার্চে গলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসাবে টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন মুশফিক। ওই ম্যাচে ২০০ রান করে আউট হয়েছিলে তিনি। ২০১৫ সালের এপ্রিলে দ্বিতীয় বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসাবে টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরির দেখা পান তামিম ইকবাল। খুলনায় অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচে ২০৬ রান করে আউট হয়েছিলেন তামিম।

২০১৭ সালের জানুয়ারিতে তৃতীয় বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসাবে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ওই ম্যাচে ২১৭ রান করে আউট হয়েছিলেন তিনি। টেস্টে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের মালিক এখন মুশফিকুর রহিম। এর আগে ২১৭ রান করে এই রেকর্ডের মালিক ছিলেন সাকিব আল হাসান। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শুধু টেস্টেই বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা ডাবল সেঞ্চুরি করতে পেরেছে। টেস্টে এখন পর্যন্ত চারটি সেঞ্চুরি করতে পেরেছে টাইগাররা।

টেস্ট ক্রিকেটে উইকেটে বেশি সময় থাকার দিক থেকেও মুশফিকুর রহিম রেকর্ড গড়েছেন। প্রথম বাংলাদেশি হিসাবে দীর্ঘ সময় উইকেটে থাকার রেকর্ড এখন মুশফিকের। ৫৮৯ মিনিট উইকেটে থাকেন তিনি। বালাদেশের হয়ে দীর্ঘ সময় উইকেটে থাকার রেকর্ডটি এর আগে ছিল আমিনুল ইসলাম বুলবুলের।

২০০১ সালে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল বাংলাদেশের। ভারতের বিপক্ষে ওই ম্যাচে ১৪৫ রান করেছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। এই রান করার পথে তিনি ৫৩৫ মিনিট উইকেটে ছিলেন। মিরপুরে গতকাল ইনিংসের ১৪৭তম ওভারে এই রেকর্ড রেকর্ড ছাড়িয়ে যান মুশফিক।

বিশ্বের মধ্যে প্রথম উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসাবে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়েছেন মুশফিকুর রহিম। টেস্টে সবচেয়ে বেশি ডাবল সেঞ্চুরি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ক্রিকেটার ডন ব্রাডম্যানের। ১১টি ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারা। তারপরও উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসাবে বেশি সংখ্যক সেঞ্চুরির দিক থেকে মুশফিকুর রহিমই এগিয়ে রয়েছেন। তাছাড়া মুশফিকুর রহিমই বাংলাদেশের একমাত্র ব্যাটসম্যান যিনি ডাবল সেঞ্চুরি করে অপরাজিত থাকেন।

সোমবার অষ্টম উইকেট জুটিতে মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে অপরাজিত ১৪৪ রানের জুটি গড়েন মুশফিকুর রহিম। টেস্টে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে অষ্টম উইকেট জুটিতে এটিই এখন সেরা। গতকাল মুমিনুল হকের সঙ্গে ২৬৬ রানের জুটি গড়েছিলেন মুশফিক। চতুর্থ উইকেট জুটিতে সেটিও এখন সেরা।

টেস্ট ক্রিকেটে নির্ভতার প্রতীক মুশফিকুর রহিম। ছোট-বড় ইনিংসে দলে যথেষ্ট ভূমিকা রাখেন তিনি। কিন্তু শেষ দেড় বছরে ব্যক্তিগত কোনো ছিল না তার। মিরপুর টেস্টের আগে সর্বশেষ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন গত বছর ফেব্রুয়ারিতে, ভারতের বিপক্ষে। হায়দরাবাদে অনুষ্ঠিত সেই টেস্ট ম্যাচে ১২৭ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।

মিরপুরে গতকাল শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের শেষ ম্যাচ। রবিবার টস জিতে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। এদিন পাঁচ উইকেটে ৩০৩ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করে টাইগাররা। সোমবার সাত উইকেটে ৫২২ রান সংগ্রহ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে বাংলাদেশ। ২১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন মুশফিক। ৬৮ রান করে অপরাজিত থাকেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ১৬১ রান করেন মুমিনুল হক।

এক নজরে ডাবল সেঞ্চুরি করে মুশফিকের যতো রেকর্ড

১. প্রথম বাংলাদেশি হিসাবে টেস্টে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি।

২. টেস্টে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে বেশি সময় ক্রিজে থাকার রেকর্ড এখন মুশফিকুর রহিমের দখলে। ৫৮৯ মিনিট ধরে ক্রিকেট থাকেন তিনি। এর আগে ৫৩৫ মিনিট থেকে এই রেকর্ডের মালিক ছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল।

৩. টেস্টে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান।

৪. বিশ্বের মধ্যে একমাত্র উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসাবে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি।

৫. বাংলাদেশের একমাত্র ব্যাটসম্যান যিনি ডাবল সেঞ্চুরি করে অপরাজিত থাকেন। ২১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি।

৬. অষ্টম উইকেট জুটিতে মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে অপরাজিত ১৪৪ রানের জুটি গড়েন মুশফিকুর রহিম। টেস্টে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে অষ্টম উইকেট জুটিতে এটিই এখন সেরা।