ডাকসুর জন্য শীর্ষ নেতাদেরই বেছে নিচ্ছে ছাত্রলীগ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারাই সংগঠনটির পক্ষ থেকে চূড়ান্ত মনোনয়ন পাচ্ছেন। কেন্দ্রীয় সংসদের ভিপি-জিএস পদে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুর শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর নাম চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী কর্তৃক গড়ে দেয়া সমন্বয় কমিটি।

কমিটির এক সদস্য ও ছাত্রলীগের শীর্ষ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

আজকের (শনিবার) মধ্যে প্যানেল চূড়ান্ত করে আগামীকাল বা পরশু একসঙ্গে মনোনয়ন সংগ্রহ করবে সংগঠনটির নেতারা।

জানা গেছে, ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্বের বাইরে প্রার্থী নির্বাচন করলে সংগঠনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডকে বুঝিয়েছে সংগঠনটির নেতারা। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে শীর্ষ নেতাদের মনোনয়ন দেয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সমন্বয় কমিটির এক সদস্য বলেন, গতরাতে আমরা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। তিনি ভিপি-জিএস পদে শোভন-রাব্বানীর নাম চূড়ান্ত করেছেন। এছাড়া অন্য পদগুলো আমাদের ঠিক করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫ জন প্রার্থী হচ্ছেন সংগঠনটির হেভিওয়েট নেতারা। এছাড়াও হল ছাত্র সংসদের ভিপি-জিএস পদেও মনোনয়ন পাচ্ছেন গত হল কমিটি, বিশ্ববিদ্যালয় ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা। হল সংসদে মূল্যায়ন করা হবে জুনিয়রদেরও। যারা বর্তমানে হলের নেতৃত্বে আসার চেষ্টা করছেন, সক্রিয় রয়েছেন সাংগঠনিক কর্মসূচিতে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদে ভিপি-জিএসসহ পদ রয়ছে ২৫টি। অন্যদিকে হল সংসদে ভিপি-জিএসসহ পদ রয়েছে ১৩টি। সে হিসেবে ডাকসু ও হল সংসদে সর্বমোট পদ ২৫৯টি। ডাকসুর ২৫টি পদ ও হল সংসদের ভিপি-জিএস-এসজিএস পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে মরিয়া সংগঠনটির অনেক নেতা। ইতোমধ্যে জোর তদবির শুরু করেছেন তারা। নিয়মিত আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড ও দলীয় সভানেত্রীর করে দেয়া কমিটির সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। নিজেকে যোগ্য প্রমাণে সক্রিয় রয়েছেন সাংগঠনিক কর্মসূচিতে।

জানা গেছে, ডাকসু নির্বাচনের জন্য ভিপি-জিএস পদে চূড়ান্ত মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। আর এজিএস পদে মনোনয়ন পাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন- এই দুজনের একজন। এছাড়া অন্য পদগুলোতেও ছাত্রলীগের গত কমিটির নেতারা মনোনয়ন পাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে আলোচনায় আছেন- কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক উপ-কর্মসূচি ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের (সাদী), আইন সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়, সহ সভাপতি আদিত্য নন্দী, উপ-অর্থবিষয়ক সম্পাদক তিলোত্তমা শিকদার, কর্মসংস্থানবিষয়ক সম্পাদক রাকিবুল হাসান রাকিব, শামসুন্নাহার হলের সভাপতি নিপু ইসলাম তন্বী, রোকেয়া হলের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার, জহুরুল হক হলের সাধারণ সম্পাদক আসিফ তালুকদার, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সম্পাদক খাদেমুল বাশার জয়, উপ-সম্পাদক আরিফ ইবনে আলী, শেখ ইনান, ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি এস এম রাকিব সিরাজী, এসএম হলের সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেলসহ অনেকে।

জানতে চাইলে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বলেন, আমরা তফসিলের তারিখের সঙ্গে সমন্বয় করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্যানেল ঘোষণা ও মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবো।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য একটা ইনক্লুসিভ প্যানেল উপহার দিতে চাই সেক্ষেত্রে আমাদের ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ছাড়াও জোটভুক্ত সব রাজনৈতিক সংগঠন, টিএসসির সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, অরাজনৈতিকভাবে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে নেতৃত্ব দিয়েছে, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইভেন্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিত্ব করেছে, প্রতিবন্ধী, পাহাড়ি, নারী শিক্ষার্থী সবাইকে নিয়েই আমাদের প্যানেল হবে।