ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপারের প্রত্যাহারের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

আরিফ হাসান, ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা : ঠাকুরগাঁও বিএনপি’র সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে রাজনৈতিক দলের এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নির্বিচারে বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতা কর্মীদের নামে মিথ্যা বানোয়াট মামলা দিয়ে গ্রেফতার শুরু করেছে।

সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাব আনিসুল হক মিলনায়তনে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক লিখিত বক্তব্যে পুলিশ সুপারের প্রত্যাহারের দাবি করে উক্ত সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সংবাদ সম্মেলনে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের ছোট ভাই মির্জা ফয়সাল আমিন বলেন, পুলিশ প্রশাসনের মাধ্যমে বিএনপির উপর নির্যাতন, অত্যাচার, মামলা, হামলা, গ্রেফতার করে আসন্ন নির্বাচনের মাঠ থেকে দুরে রাখার নীল নক্সা বাস্তবায়ন করছে। এতে করে পুলিশী গ্রেফতারের ভয়ে নেতাকর্মীরা গৃহহীন হয়ে রয়েছে।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, সম্প্রতি বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করলে মাইক বন্ধ করে প্যান্ডেল ভেঙ্গে দেয়। ওই দিনেই বেগুনবাড়ি ইউনিয়নের ৪ জনকে বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে ১০৫ জনের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়া গত কয়েক দিনে পুলিশ ঠাকুরগাঁও জেলায় ১০ জনকে গ্রেফতার করে প্রায় ৫ শতাধিক নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে ৩টি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

সংবাদ সম্মেলনে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপি পুলিশ প্রশাসনের দেওয়া মিথ্যা মামলা ও সরকারের কাছে পুলিশ সুপারের প্রত্যাহারের দাবি জানায়।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, পীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান, রাণীংশকৈল উপজেলা বিএনপির সভাপতি আমিনুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক নুরনবী, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ, যুবদলের সভাপতি মহেবুল্লাহ চৌধুরী আবু নূর প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলন শেষে জেলা প্রশাসকের কাছে পুলিশ সুপারের প্রত্যাহারের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেন জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা।