জয়পুরহাটে বিষমুক্ত সবজি চাষে সফলতা কৃষকদের

বিষমুক্ত সবজি চাষে সফলতা পাওয়ায় দিন দিন তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সদর উপজেলার বালিয়াতর গ্রামের কৃষক আশরাফুল ইসলামসহ অনেক কৃষক বর্তমানে বিষমুক্ত সবজি চাষে সফলতা পেয়েছেন।

সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, চারা রোপণ থেকে শুরু করে ৬০ দিনের মাথায় সবজি বাজারে বিক্রি করা যায় এমন ফসল হিসেবে এবার ফুল ও বাধা কপি চাষ করার সিদ্ধান্ত নেন আশরাফুল। এ বিষমুক্ত সবজি চাষে কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করেন স্থানীয় বে-সরকারি উন্নয়ন সংস্থা ’জাকস ফাউন্ডেশন’। এক একর জমিতে ৪ হাজার কপির চারা রোপণে খরচ পড়ে ১০ হাজার টাকার মতো। অর্থায়নে সহযোগিতা করেছেন পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)। কীটনাশক বা বালাইনাশক ব্যবহার না করে জমিতে স্থাপন করা হয়েছে ১২ টি সেক্স ফেরোমন ফাঁদ।

বর্তমানে পুরো জমিতে বিষমুক্ত ফুল ও বাধা কপি বেশ আগ্রহের সৃষ্টি করেছে অন্যান্য চাষিদের। একই গ্রামের তসলিম উদ্দিন, আব্দুল মান্নান, মেহের আলী, মো. তছলিম ও আব্দুর রহমান মিলে আরো ২ একর জমিতে বিষমুক্ত ফুল ও বাধা কপি চাষ করেছেন বলে জানান।

এ ছাড়াও মরিচ, করলা, পটলসহ অন্যান্য ফসলও চাষ করা হয় বিষমুক্ত ভাবে। স্থানীয় ভাবে এবং বাজারেও বিষমুক্ত সবজির চাহিদা অন্যান্য সবজির চেয়ে বেশি বলে জানান চাষিরা। সব খরচ বাদে এক বিঘা জমির ফুল ও বাধা কপি বিক্রি করে ২০/২৫ হাজার টাকা লাভ থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন আশরাফুল ইসলাম।

জাকস ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক (কৃষি) ওবায়দুল ইসলাম বলেন, পিকেএসএফের সহযোগিতায় বিষমুক্ত সবজি চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে ১২ টি ব্লকে এবার এক লাখ ৫৬ হাজার টাকা অনুদান হিসাবে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

জাকস ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মো. নূরুল আমীন বলেন, বিষমুক্ত সবজি চাষে কৃষকদের সহায়তা করতে একটি মেগা প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। বাসস

Inline
Inline