ছাত্র অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি, শিক্ষক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর মধুবাগ এলাকা থেকে সাবেক ছাত্র সামিরকে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য অপহরণের কথা র‌্যাবের কাছে স্বীকার করেছেন মাদ্রাসা শিক্ষক মো. মাইনুল ইসলাম (২৪)।

শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে বিমানবন্দর স্টেশন এলাকায় অভিযান চালিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার ও অপহরণকারীকে আটক করা হয়। আটক মাইনুল নোয়াখালী জেলার সোনাপুর সাঈদাতুল আবরার (কওমি) মাদ্রাসার শিক্ষক।

র‌্যাব জানায়, অপহরণের শিকার শিশুটির নাম মো. সামির (৮) বরিশালের কোতোয়ালি থানার বুখাইনগর গ্রামের মো. কাওসার আহম্মেদ পিন্টুর ছেলে। তারা ঢাকার হাতিরঝিল থানা এলাকার মধুবাগ মগবাজারের একটি বাসায় বাস করেন।

র‍্যাব সূত্রে জানা গেছে, সামিরকে প্রাইভেট পড়াতেন মাইনুল। তাদের পরিবারের সঙ্গে ভাব হয়ে যায় মাইনুলের। পড়ানোর সুবাদে শিশু সামিরও মাইনুলকে পছন্দ করত। পরে চাকরি নিয়ে নোয়াখালীতে চলে যান মাইনুল। কিন্তু ফোনে যোগাযোগ রাখতেন তিনি। সামিরের বাবা কাওসার আহমদ মাইক্রোবাসচালক।

র‍্যাব-৩-এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) রবিউল ইসলাম বলেন, সামিরকে অপহরণের পরিকল্পনা করে ঈদের পরদিন ঢাকায় আসেন মাইনুল। ওই দিন বিকেলে সামির তাদের বাড়ি মধুবাগের মাঠে খেলছিল। বিকেলে খেলার সময় সামিরকে ফুসলিয়ে খেলা থেকে সরিয়ে আনেন মাইনুল। তারপর তাকে নিয়ে পালিয়ে যান। ঢাকার একটি বাসায় রেখে মাইনুল সামিরের বাবা কাওসারের মাইক্রোবাসে একটি চিরকুট ফেলে যান। চিরকুটে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। দুটি মোবাইল ফোন নম্বর লিখে রাখেন মাইনুল। কাওসার পরে র‍্যাবের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। মাইনুল ফোন করে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে রাজি হলে মাইনুল বিমানবন্দর রেলস্টেশনে আসতে বলেন কাওসারকে। সেখানে মাইনুলকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

র‌্যাব সূত্র জানায়, শুক্রবার বিকেলে কাওসার টাকা নিয়ে এলে দূর থেকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছিলেন মাইনুল। মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে মাইনুলকে শনাক্ত করা হয়। এ ঘটনায় মাইনুলের বিরুদ্ধে রমনা মডেল থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।