চুলকে মসৃণ ও ঝলমলে করবেন যেভাবে

ডেস্ক : মসৃণ ও ঝলমলে চুল সবার কাছেই একটি কাঙ্খিত বিষয়। শুষ্ক ও রুক্ষ চুল নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন অনেকেই। নানা রকম দামী শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ব্যবহার করে কিংবা হেয়ার থেরাপি নিয়েও পাচ্ছেন না কাঙ্ক্ষিত ফল। তবে ঘরোয়া ভাবেই করুন চুলের যত্ন, চুল হবে মসৃণ, ঝলমলে ও আকর্ষনীয়। জেনে নিন প্রাণহীন রুক্ষ চুলকে মসৃণ ও ঝলমলে করার কিছু ঘরোয়া উপায়।

চায়ের লিকার
চা শুধু পান করার জন্য না এছাড়াও নানা কাজে ব্যবহৃত হয়। ঝলমলে চুলের জন্য দারুণ কাজ করে চায়ের লিকার। চুলে ব্যবহারের জন্য প্রথমে চায়ের লিকার তৈরী করে নিন। লিকার তৈরির জন্য দুই কাপ পানি নিন। তার মাঝে ৬ টেবিল চামচ ফ্রেশ চা পাতা দিন। এটাকে এখন অল্প আঁচে চুলায় ফুটতে দিন। ফুটে ফুটে লিকার ঘন হবে। এবং দুই কাপ পানি কমে এক কাপের কম হলে বুঝবেন যে রেডি। এখন এটাকে ঠাণ্ডা করে ছেঁকে নিন। শ্যাম্পু করার পর ভেজা চুলে এই মিশ্রণ মাখুন। ৫ মিনিট পর সাধারণ পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

ভিনেগার
খাবার ভাল রাখার জন্য যে ভিরেগার ব্যবহার করছেন তা ব্যবহার করতে পারেন চুলেও। আধা কাপ ভিনেগার এক মগ পানিতে মিশিয়ে নিন। তারপর সেটা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন শ্যাম্পু করা চুল। ৫ মিনিট পর আবার একটু স্বাভাবিক পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। শুকিয়ে নিলেই পাবেন ঝলমলে চুল।

বেকিং সোডা
প্রাণহীন চুলকে ঝলমলে করে তুলতে বেকিং সোডার কোনো বিকল্প নেই। এ কাপ হালকা গরম পানির মাঝে ১ টেবিল চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন। শ্যাম্পু করা ভেজা চুলে এই মিশ্রণ লাগান। ৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এবার চুলের চমক দেখে নিজেই অবাক হয়ে যাবেন!

ডিম এবং দইয়ের প্যাক
চুলকে সুন্দর করতে ব্যবহার করতে পারেন এ দুই খাদ্য উপাদানও। ডিম এবং দইয়ের প্যাক চুলকে সিল্কি করে থাকে। ২ টি ডিমের সাদা অংশ, ২ টেবিল চামচ টকদই। সবগুলো উপাদান নিয়ে একটি ঘন পেষ্ট তৈরি করুন। এইবার পেষ্টটি চুলে ভাল করে লাগান। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। ডিম আর দইয়ের প্রোটিন আপানার চুলকে গোঁড়া থেকে মজবুত করার সাথে সাথে প্রাকৃতিকভাবে আপানার চুলকে ঝলমল করবে।

মধু এবং ভেজিটেবল অয়েল
মধুকে বলা হয় প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার। মধু আর ভেজিটেবল অয়েল চুলকে ভেতর থেকে পুষ্টি দিয়ে থাকে। ২ টেবিল চামচ মধু, ২ টেবিল চামচ ভেজিটেবিল অয়েল মিশিয়ে নিন। এটি আপানার চুলে লাগিয়ে নিন। ১৫/২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।