চিকিৎসকদের কাছে চাঁদাদাবী ও সরকারি কাজে বাধায় কাউন্সিলরের নামে মামলা

নলছিটি প্রতিনিধি : ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক, নার্স ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছে চাঁদাদাবী, হুমকি ও সরকারি কাজে বাধা দানের অভিযোগে পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর ও ৩ নং পৌর ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি মু.মুনিরুজ্জামান মুনিরের নামে মামলা হয়েছে। রবিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. ফারুক আলম বাদী হয়ে নলছিটি থানায় এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় আরো ৫-৬ জনকে আসামী করা হয়। রাতেই পুলিশ আসামী মুনিরের নান্দিকাঠি বাইপাস সড়কের বাসায় তল্লাশী চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মুনির পালিয়ে যায়। মামলার বিবরণে জানাযায়, রবিবার সকালে পৌরসভার তিন নম্বও পৌর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর ও আ’লীগ সভাপতি মু. মনিরুজ্জামান মুনির ৫-৬ জন সহযোগী নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভেতরে প্রবেশ করে। এসময় তারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক, নার্স, চিকিৎসা সহকারী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রকাশ্যে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন। পরে তারা জরুরী বিভাগে গিয়ে দরজায় লাথি মেরে চিকিৎসা সহকারী জালাল আহম্মেদ ও শংকর হাওলাদারের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদাদাবী করেন। টাকা না দিলে হাত-পা ভেঙে দেওয়ার  হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আতংক ছড়িয়ে পড়ে বলে উপস্থিত চিকিৎসকরা জানান। উল্লেখ্য বছর কয়েক আগে হাসপাতালের গাছ জোড় পূর্বক কেটে নেওয়াসহ নানা অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দুইটি মামলা দায়ের করেছিল হাসপাতাল কতৃপক্ষ। নলছিটি থানার ওসি একেএম সুলতান মাহমুদ বলেন, মামলা দায়েরের পরে পুলিশ তার বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় তাকে পাওয়া যায়নি। তাকে ও তার বাহিনীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। জানাগেছে, সাবেক এ কাউন্সিল মু.মুনিরুজ্জামান মুনির ফেইসবুকে মানুষের নামে বিভ্রান্তিকর তথ্য, সম্মানহানীকর মন্তব্য লিখে স্টাটাস দেয়। তার বাহিনীর একাধিক ফেইক আইডি দিয়ে স্টাটাসে কমেন্ট করে মানুষের মানহানী করে আসছে। এভাবে ফেসবুকে লিখে মানুষকে জিম্মি করে চাঁদাদাবীর অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে মু.মনিরুজ্জামান মুনির সেলফোনে বলেন, আমি ফেসবুকে কয়েক দিন ধরে হাসপাতালের দুর্নীতি নিয়ে লেখালেখি করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার নামে মিথ্যা মামলা করেছেন।