চট্টগ্রামে স্থাপনা উচ্ছেদ নিয়ে বিতর্ক

কামরুল ইসলাম হৃদয়, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) ভ্রাম্যমাণ আদালত নগরীর জহুর হকার্স মার্কেটের প্রবেশ পথে নির্মাণাধীন একটি স্থাপনা ভেঙে দিয়েছে। গতকাল বুধবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে তা ভাঙা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন চসিকের বিশেষ ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌস ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আছিয়া আক্তার। তবে এ নিয়ে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। হকার্স মার্কেট ব্যবসায়ীরা বলছেন, ‘সেখানে বঙ্গবন্ধু সহ আওয়ামী লীগের তিন নেতার ভাস্কর্য তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ আর ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিশেষ ম্যাজিস্ট্রেট বলছেন, ‘চসিকের অনুমতি না নিয়ে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করায় আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সেখানে কোনো মুর্তি বা স্থাপনা ছিল না।’ এ ঘটনার পর হকাররা সেখানে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে হকার্স মার্কেটের ব্যবসায়ীরা দোকানপাট বন্ধ করে দেন। চট্টগ্রাম পৌর জহুর হকার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম বলেন, ‘মার্কেটের পূর্ব দিক দিয়ে প্রবেশ পথের পাশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জহুর হকার মার্কেট যার নামে সেই প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা জহুর আহমদ চৌধুরী এবং সম্প্রতি প্রয়াত নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর আবক্ষ মূর্তি স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এর অংশ হিসেবে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম এনে কাজও শুরু হয়েছিল। এর মধ্যে গতকাল দুপুরে চসিকের ভ্রাম্যমাণ আদালত এখানে আসে। তখন নামাজের সময় বলে সমিতির কেউ ছিলেন না। তখন এই প্রতিকৃতিকে অবৈধ বলে সেটা ভেঙে দিয়ে চলে যান। ফলে ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্ধ হন।’ চসিকের বিশেষ ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌস বলেন, ‘নালার ওপর অনুমোদনহীন একটি স্থাপনা করার অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করি। তখন সেখানে কোনো স্থাপনা বা আবক্ষ মূর্তি ছিল না। এ সময় হকার সমিতির নেতারা আমাদের সঙ্গে কথা বলতে আসলে তাদের বলেছি, মেয়রের অনুমতি নিয়ে স্থাপনা নির্মাণ করুন।’