গ্রামীণফোন ও বাংলালিংকের ফোর-জি’র ১৫২ কোটি টাকা ভ্যাট প্রদান

ঢাকা, ২০ মার্চ, ২০১৮ : চতুর্থ প্রজন্ম মোবাইল সেবার (ফোর-জি) তরঙ্গ মূল্য বাবদ গ্রামীণফোন এবং বাংলালিংক জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) ১৫২ কোটি টাকার মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) পরিশোধ করেছে। সোমবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) বৃহৎ করদাতা ইউনিটে (এলটিইউ) এই অর্থ জমা দেন। তবে রবির কাছে ফোর-জি তরঙ্গ মূল্য বাবদ পাওনা ১৭ কোটি টাকার ভ্যাট এখনও পরিশোধ করেনি।
এর আগে দুই মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন এবং বাংলালিংক ১৫২ কোটি টাকার ভ্যাট রাজস্ব বিটিআরসিকে প্রদান করে।বিটিআরসি আজ ১৫২ কোটি টাকার চেক এলটিইউতে হস্তান্তর করে।
এ বিষয়ে এলটিইউ কমিশনার মো. মতিউর রহমান বলেন, ফোর-জি সেবা চালু হওয়ার আগেই মোবাইল কোম্পানিগুলো তরঙ্গ মূল্য বাবদ ভ্যাট পরিশোধ করার কথা থাকলেও তারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধ করেনি।এ কারণে আমরা ফোন কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে মামলা করি। এর প্রেক্ষিতে গ্রামীণফোন ও বাংলালিংক আজ প্রথম কিস্তির পাওনা ১৫২ কোটি টাকার ভ্যাট পরিশোধ করেছে। তবে রবির কাছে পাওনা ১৭ কোটি টাকা এখনও পাওয়া যায়নি।
তিনি জানান, আগামী সপ্তাহের মধ্যে রবির কাছে পাওনা প্রথম কিস্তির ১৭ কোটি টাকার ভ্যাট পরিশোধ না হলে, তাদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হবে।
উল্লেখ্য, গত ২০ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ প্রজন্মের দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা চালু করার জন্য ৪টি মোবাইল ফোন অপারেটরকে ফোর-জি লাইসেন্স প্রদান করে বিটিআরসি। সেই হিসেবে ২০ ফেব্রুয়ারির আগেই ফোর-জি তরঙ্গ মূল্য বাবদ ১৬৯ কোটি টাকা ভ্যাট পরিশোধ করার কথা ছিল এনবিআরকে। এর মধ্যে গ্রামীণফোন ও বাংলালিংক আজ ভ্যাট পরিশোধ করলো।
বাংলালিংক দুই হাজার ৫৫৮ কোটি টাকায় ১০ দশমিক ৬ মেগাহার্স এবং গ্রামীণফোন এক হাজার ২৮৪ কোটি টাকায় ৫ মেগাহার্স তরঙ্গ ক্রয় করে।এর ওপর এনবিআরকে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট প্রদান করতে হবে।

Inline
Inline