গোপালগঞ্জে সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রীদের সংগঠনের যাত্রা শুরু

শিমুল খান, গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জ সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের শিক্ষক মিলনায়তন কেন্দ্রে সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রীদের সংগঠন (বিসিসি) ঈদ পুনর্মিলনী ও মত বিনিময় সভা বৃহস্পতিবার (২০ জুন) অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রী শিক্ষক, বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও ছাত্রনেতাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে এই কলেজের প্রাক্তণ কিছু ছাত্র-ছাত্রী একটি সংগঠন করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছিল কিন্তু তারা সংগঠনের কোন কমিটি বা রুপরেখা দাঁড় করাতে পারেনি।
অতি-সম্প্রতি তারা আবারও উদ্যোগ নেয়। সে লক্ষে কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র এবং সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল হক ফেসবুকে একটা গ্রুপ খুলে সংগঠনটি দাঁড় করানোর জন্য সকলের কাছে আবেদন জানায়। এতে জহিরুল হক ডাবলু, নাগরিস সুলতানা, রাসেল সিকদার ও রুনা হকসহ বিপুল সংখ্যক প্রাক্তণ শিক্ষার্থী সাড়া দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় ঢাকার দি কারী হাউজে আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলে ঢাকাস্থ গোপালগঞ্জ সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ শিক্ষার্থীরা সর্বসম্মতি ক্রমে কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয় এবং সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র সাবেক বিচারপতি সামচুল হুদা মানিককে আহ্বায়ক করে একটি কমিটি গঠন করা হয় এবং উপস্থিত সকলকে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।
এ সময় ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র সাবেক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু হলের ভিপি মঞ্জুরুল হক (লাভলু), পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি হাবিবুর রহমান (হাবিব), লে. কর্ণেল জাহিদুল ইসলাম কুরছি, সিআইডি’র এএসপি আবু নোমান, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সাজ্জাদ হোসেন, ব্যবসায়ী আতিয়ার রহমান (দিপু), শেখ মোত্তাহিদুর রহমান (শিরু), হিন্দাল কাদির (বাপ্পা), কাজী কামরুল হাসান (মিলন), ইকবাল হোসেন থোকন, খোন্দকার খালিদ আজিজ শিপু ও মেহেদী হাসান কাজল, নার্গিস সুলতানা, পরশিয়া সুলতানাসহ কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রী, সরকারী কর্মকর্তা, উপ-সচিব, সচিব পর্যায়ের উল্লেখযোগ্য প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রীরা।
পরে ওই কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক ভবিষ্যতে সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রীদের এই সংগঠন পরিচালনার লক্ষে গোপালগঞ্জে পরবর্তী একটি সভা আয়োজন করা হবে বলেও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের শিক্ষক মিলনায়তন কেন্দ্রে প্রাক্তণ ছাত্র-ছাত্রীদের একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভার সভাপতি হিসেবে সামসুল হুদা মানিকের নাম প্রস্তাব করা হলেও তার শারিরীক অসুস্থতার কারণে সভায় উপস্থিত থাকতে না পারায় তার চেয়ার খালি রেখে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত সকলের নিজ নিজ বক্তব্য ও মতামত প্রকাশের পর সকলের মতামতের ভিত্তিতে সংগঠনের গঠনতন্ত্রসহ অফিস ও সদস্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে কমিটির পূর্ণাঙ্গ রুপ প্রকাশ করা হবে বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সভায় গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শেখ রুহুল আমিন, আইন বিষয়ক সম্পাদক মেজবাহ্ উদ্দীন, দপ্তর সম্পাদক ইলিয়াস হক, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য শেখ মোত্তাহিদুর রহমান শিরু, সাবেক ছাত্রনেতা কাজী কামরুল হাসান মিলন, এ্যাডভোকেট শামসুন নাহার, কলেজের প্রাক্তণ ভিপি জামিল সরোয়ার, রবিউল শিকদার, কলেজের সাবেক জিএস মুশফিকুর রহমান লিটন, সাবেক ভিপি শরিফুল শিকদার, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এমবি সাইফ (বি মোল্লা), কলেজের সাবেক ভিপি মাহমুদ শিকদার, গোবরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান (টুটুল), জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য মাহমুদুর রহমান দিপু, কেন্দ্রীয় যুব মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী চৌধুরী অনতু রহমান, জেলা যুব মহিলালীগ সাধারণ সম্পাদক পরশিয়া সুলতানা, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আব্দুল হামিদ ও নাজমা খানম, সাংবাদিক মিজানুর রহমান মানিকসহ স্থানীয় শিক্ষক, সাংবাদিক, কবি ও বিপুল সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী সভায় নিজ নিজ বক্তব্য ও মতামত তুলে ধরেন। সভায় কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ মতিয়ার রহমান উপাধ্যক্ষ সরদার নুরুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক মোঃ শাহ আলম ছাড়াও অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
পরে অধ্যক্ষ মোঃ মাতিয়ার রহমান ইলিয়াস হকের একটি অফিস কক্ষের প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে এই সংগঠনের জন্য একটি অফিস দেওয়া হবে বলে ঘোষনা দেন।
মত বিনিময় সভার আয়োজকদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন শেখ মোত্তাহিদুর রহমান (শিরু), জহিরুল হক ডাবলু, মাহমুদুল হক, রাসেল সিকদার, প্রমূখ।

Inline
Inline