গোপালগঞ্জে মধুমতি লেকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন অভিযান শুরু

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপলগঞ্জ শহরের প্রান ৫ কিঃ মিঃ মধুমতি লেক পরিস্কার অভিযান শুরু করেছেন পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী লেকু। গতকাল মঙ্গলবার শহরের শহরের গেটপাড়া ব্রিজ থেকে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ খলিলুর রহমান। এ সময় জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী লেকু, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে ফজলুল হক উপস্থিত ছিলেন।
গোপালগঞ্জ জেলা শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য ২০০৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজ উদ্যোগে প্রায় ৬০ কোটি টাকা ব্যায়ে শহরের মধুমতি লেক প্রকল্প গ্রহন করা হয়। ২০০৯ সালে মধুমতি নদী খনন, দুই পাড়ে বসার স্থান, পাকা সড়ক, মসজিদ, খাবারের দোকান, পার্ক ও বিনোদনের ব্যবস্থা সহ এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়। দীর্ঘ দিনের অব্যবস্থাপনায় লেকটি ভরাট হয়ে গেছে। আবর্জনায় পানি দূষিত হচ্ছে। অনেক স্থান দখল করে টয়লেট নির্মান করা হয়েছে। লেকের মধ্যে বাঁশ ও গাছের ডাল ফেলে মাছের আবাসস্থল তৈরী করে লেকের ক্ষতি করা হচ্ছে। বালু ও ইট রেখে ফুটপাত দখল করা হচ্ছে। ফুটপাতের লাইট নষ্ট হয়ে গেছে। পার্কের রাইড গুলো ব্যাবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। দখল আর দুষনে লেকটি বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। কাজী লিয়াকত আলী লেকু গোপালগঞ্জ পৌর সভার মেয়র প্রার্থী হয়েই লেকটি রক্ষার প্রতিশ্রুতি দেন। মেয়র নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব গ্রহন করার পরই তিনি লেক রক্ষায় পরিচ্ছন্ন অভিযান শুরু করেন।
কাজী লেয়াকত আলী লেকু বলেন, মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসক লেক পরিষ্কার কাজের উদ্বোধন করেছেন। এর পর কর্মীরা লেকের ময়লা-আবর্জনা সরিয়ে, দুই পাড় পরিচ্ছন্ন শুরু করে। দ্রুত মধুমতি লেক আগের রূপে ফিরবে বলে মেয়র আশাবাদ ব্যক্ত করেন। লেক গোপালগঞ্জের প্রান। তাই এ ধারা অব্যাহত থাকবে। তিনি শহরের সৌন্দর্য ধরে রাখতে পৌর বাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।
গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ খলিলুর রহমান বলেন, পরিবেশ রক্ষায় পৌর মেয়র প্রশংসীয় উদ্যোগ গ্রহন করেছে । লেকটি দখল ও দুষনমুক্ত হলে পৌরবাসী উপকৃত হবেন।