গোপালগঞ্জে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ শ্রমিক নিহত, আহত ১৭

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় তিন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরো ১৭ জন। মঙ্গলবার রাতে মুকসদুপুর উপজেলার উজানী-মুকসদপুর সড়কের কমলাপুর ও গোপালগঞ্জ-কোটালীপাড়া সড়কের সদর উপজেলার মাঝিগাতীতে এ দূর্ঘটনা ঘটে।
দূর্ঘটনা নিহত শ্রমিকেরা হলেন, সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনী উপজেলার বেতুয়া গ্রামের মো: আব্বাস সরদারের ছেলে ইমাম হাসান (২৩) ও একই গ্রামের মৃত আফসার সরদারের ছেলে এবাদুল সরদার (৩৫) এবং বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ উপজেলার খড়ইখালি গ্রামের মৃত একব্বর হাওলাদারের ছেলে মোস্তফা হাওলাদার (৫০)।
মুকসুদপুর থানার পরির্দশক (তদন্ত) মোঃ জাফর মিয়া জানান, মুকসুদপুর উপজেলার উজানী থেকে ধান কেটে নিজেদের অংশ ট্রাকে ভর্তি করে গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনী উপজেলার বেতুয়া গ্রামে যাচ্ছিলেন ১৯ শ্রমিক। এ সময় ট্রাকটি উপজেলার কমলাপুর নামক স্থানে পৌঁছালে চাকা ফেটে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের খাদে ট্রাকটি পড়ে যায়। এতে ধান বোঝাই ট্রাকের উপর বসে থাকা ১৯ শ্রমিকের মধ্যে ইমাম হাসান ও এবাদুল সরদার নামে দুই শ্রমিক ধান ও ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলে নিহত হন। আহত হন আরো ১৭জন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকবাসীর সহায়তার হতাহতদের উদ্ধার করে। এর মধ্যে আহত অবস্থায় ৪ জনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও ৯ জনকে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেলেক্স ভর্তি করা হয়। বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।
অপর দিকে, গোপালগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেলিম রেজা জানান, কোটালীপাড়া উপজেলার বর্ষাপাড়া গ্রামে ডিপ টিউবয়েল বসিয়ে মালামাল নিয়ে নসিমনে করে মুকসুদপুর যাচ্ছিলেন মোস্তফা হাওলাদারসহ চার শ্রমিক। এ সময় নসিমনটি ওই স্থানে পৌঁছালে নিচে পড়ে গিয়ে চাকায় পিষ্ট হয়ে মারাত্মক আহত হন মোস্তফা। পরে তার সাথে থাকা শ্রমিকরা তাকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গভীর রাতে সে মারা যায়। তিনি আরো জানান, নিহতের ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

Inline
Inline