গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় একাধিক অভিযোগে অভিযুক্ত সহ শিক্ষিকা ফিরোজা

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ১৭৮নং লোহারংক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একাধিক অভিযোগে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষিকা ফিরোজা খানমের খুটির জোর কোথায়। এ প্রশ্নদেখা দিয়েছে সাধারন মানুষের মনে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, সহকারী শিক্ষিকা ফিরোজা খানম স্কুলে বসে প্রাইভেট পড়ান, অর্থের বিনিময়ে বার্ষিক পরীক্ষায় পাস করিয়ে দেন, তার কাছে প্রাইভেট পড়া ছাত্র-ছাত্রীদের বাড়ীতে গিয়ে প্রশ্ন দেখে পরীক্ষার খাতা সঠিক করে স্কুলে নিয়ে জমা দিতে বলেন। সরকারী বই বিতরনের সময় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার নামে ৪০/৫০ জন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে ২০০ টাকা করে মোট ৮/১০ হাজার টাকা আদায় করে নিজে আত্মসাৎ করেন, বিদ্যালয়ের দলিল, ওয়েট মেশিন, রেজুলেশন, বৈদ্যুতিক তার, স্কুল ফিডিং এর বিস্কুটসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মালামাল আত্মসাৎ করেছেন। এ সব বিষয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে গেলে সহকর্মী ও ছাত্র অভিভাবক বৃন্দের সাথে এলাকার প্রভাব খাটিয়ে খারাপ আচরন করেন। ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেবার হুমকি দেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে গোপালগঞ্জ থেকে সাংবাদিকদের একটি দল ওই বিদ্যালয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে ওই শিক্ষিকার ভাড়াটিয়া কিছু লোকজন স্কুলের অন্য শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দের সাথে খারাপ আচরন করেন।

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মূছা বিশ্বাস, সহ সভাপতি আ: রহমান, সদস্য হাফিজা বেগম, সদস্য শাহিদা বেগম, ছাত্র অভিভাবক সেকেন্দার আলী বিশ্বাস, মোহাম্মাদ আলী দাড়িয়াসহ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ সাংবাদিকদের বলেন, অভিযোগ গুলি সম্পূর্ন সত্য, এই স্কুলের পরিবেশ ও শিক্ষার মান উন্নয়নের সার্থে অভিযুক্ত সহ-শিক্ষিকা ফিরোজা খানম এর উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছি।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শহীদুল ইসলাম বলেন, তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Inline
Inline