গাইবান্ধায় বাল্য বিয়ে দেয়ার সময় কাজী ধরা

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের সাহাপুর গ্রামে বাল্য বিয়ে নিবন্ধন করার সময় সৈয়দ আব্দুল হাদি (৫৫) নামে এক (নিকাহ রেজিষ্টার) কাজিকে হাতে নাতে আটক করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। পরে ওই আদালতের বিচারক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রামকৃষ্ণ বর্মন তাকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

এ দন্ডপ্রাপ্ত সৈয়দ আব্দুল হাদি উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের কোচাশহর গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে। তিনি কোচাশহর ইউনিয়ন নিকাহ রেজিষ্টার হিসেবে দীর্ঘদিন থেকে কাজ করছেন।

স্থানীয়রা জানান, গত রাত সোমবার ১১টার দিকে উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের সাহাপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের অষ্টম শ্রেণির (১৪) স্কুল ছাত্রীর শোলাগাড়ী গ্রামের এক যুবকের সাথে বাল্য বিবাহ এর জন্য কার্যক্রম চলছিল। এমন সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বাল্য বিবাহ পণ্ড করে দেয়।

গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মেহেদী হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন এবং বিয়ে নিবন্ধনের সময় কাজি সৈয়দ আব্দুল হাদিকে হাতেনাতে আটক করে ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। এ সময় বর ও কনেসহ উভয় পক্ষের লোকজন পালিয়ে যায়। আজ মঙ্গলবার সকালে কাজিকে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মন জানান, এ ছাড়াও বাল্য বিয়ের অভিযোগে তার নিকাহ নিবন্ধন বাতিলের জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।