গরমের পরিমাণ জানাবে সাপ!

একুশের আলো২৪ ডেস্ক : প্রকৃতিতে এখন তীব্র দাবদাহ। এই গরমে হাসফাঁস জনজীবন। প্রকৃতিতে গরম কতটা তা যদি কোনো সাপ পরিমাপ করে দেয় তাহলে তো অবাকই হতে হবে। অবাক হলেও এমন এক সাপের খোঁজ পাওয়ার দাবি করেছে ভারতের কিছু সর্প বিশারদ।

ভারতের অরুণাচল প্রদেশে খোঁজ পাওয়া গেছে নতুন প্রজাতির পিট ভাইপারের। এই সাপটি নাকি গরমের পরিমাণও অনুভব করতে পারবে। অদ্ভুত এই বিষধরের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে অরুণাচল প্রদেশের পশ্চিম কামেং জেলায়। শুক্রবার (১০ মে) এই কথা জানান কামেং বন বিভাগের এক কর্মকর্তা। তিনি আরও জানান, সর্প বিশারদ অশোক ক্যাপ্টেনের নেতৃত্বে সর্প বিশারদদের একটি দল ওই সাপটি খুঁজে পায়। সর্প বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, লালচে বাদামি রঙের এই পিট ভাইপারটি অত্যন্ত বিষাক্ত।

এ প্রসঙ্গে অশোক ক্যাপ্টেন বলেন, ‘রাশিয়ার সর্পবিদ্যা সংক্রান্ত একটি জার্নালের মার্চ-এপ্রিল সংস্করণে এই আবিস্কারের কথা প্রকাশিত হয়েছে। অরুণাচল প্রদেশ থেকে এই সাপের খোঁজ পাওয়ার আগে পর্যন্ত ভারতে চারটি পিট ভাইপারের অস্তিত্বের কথা জানা গিয়েছিল। সেগুলো হল- মালাবার, হর্সেশ, হম্প-নাসড এবং হিমালয়ান। এখনও পর্যন্ত আমরা অরুণাচলের ওই পিট ভাইপারের প্রাকৃতিক ইতিহাস সম্পর্কে কিছু জানতে পারিনি। কারণ, এখনও পর্যন্ত এই প্রজাতির মাত্র একটি পুরুষ সাপের সন্ধান পেয়েছি আমরা। আরও সমীক্ষা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর এই প্রজাতির সাপের আচরণ, খাদ্যভ্যাস ও প্রজনন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারা যাবে। জানা যাবে যে এই সাপ ডিম দেয় না সন্তান প্রসব করে।’

জীব বৈচিত্র্য নিয়ে গবেষণার জন্য পুনের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ-এর একটি প্রতিনিধি দল অরুণাচল প্রদেশ এসেছিল। তারাই পশ্চিম কামেং জেলার জঙ্গলে অবস্থিত রামদা গ্রামের কাছে এই বিশেষ প্রজাতির সাপটির দেখা পায়।

অরুণাচল প্রদেশের বনদফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, আবিস্কারের পর নতুন প্রজাতির এই সাপটিকে ইটানগরে অবস্থিত অরুণাচল প্রদেশের স্টেট ফরেস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটে দান করা হয়েছে।