খুলনা-কলকাতা ট্রেন যাত্রা অনিশ্চিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : অর্ধ শতাব্দীরও বেশি সময় পর কলকাতার সঙ্গে খুলনার রেল যোগাযোগের সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত করেও ভারতের রেল বোর্ডের প্রয়োজনীয় অনুমতি মিলল না। সে কারণেই আপাতত অনিশ্চিত হয়ে পড়ল কলকাতা-খুলনা যাত্রীবাহীট্রেন চলাচল।পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী ৩ আগস্ট থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে নতুন ওই ট্রেনটির চলাচল শুরু হওয়ার কথা ছিল। নাম রাখা হয়েছিল ‘সোনার তরী’ এক্সপ্রেস। কিন্তু ভারতের রেল বোর্ড নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে এ বিষয়ে চূড়ান্ত অনুমতি দেয়নি বলে খবর প্রকাশ করেছে দেশটির একাধিক গণমাধ্যম।প্রতিবেদনে ভারতের রেল বোর্ডের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে জানানো হয়, পরীক্ষামূলক চলাচলের সময় দেখা গেছে অতিরিক্ত ভিড় হয়ে যায়। তা নিয়ন্ত্রণ করার মতো ব্যবস্থা ছিল না। ফলে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। নিরাপত্তার অভাব পূরণ না করে ট্রেন চালানোর অনুমতি দেবে না বোর্ড। এছাড়াও, পরিকাঠামোর সামান্য ত্রুটি এখনও রয়ে গিয়েছে।শুধু যাত্রীবাহী ট্রেনই নয়। কলকাতা থেকে খুলনা পর্যন্ত নিয়মিত কন্টেনার সার্ভিস (মালগাড়ি) চালানোর যে পরিকল্পনা হয়েছে, আপাতত সেটিরও অনুমতি আসেনি।ভারতের পেট্রাপোল এবং বাংলাদেশের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে এক সময় যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করত। কলকাতা থেকে এই লাইন দিয়েই যেত উত্তরবঙ্গ ও আসামমুখী ট্রেনগুলো। কিন্তু ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের সময় দুটি রুটই বন্ধ হয়ে যায়। রাজনৈতিক পরিস্থিতি পাল্টে যাওয়ায় তারপরে আর ট্রেন চলেনি। পরে দুইদেশের মধ্যে ওই লাইনটিও ছিন্ন করে দেওয়া হয়।গত বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরে ট্রেন চলাচলের বিষয়টি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা হয়। ঠিক হয়, এ বছরেই ট্রেন চলাচল শুরু হবে। এরপর গত ৮ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময়ে ওই রুটে এক দফা পরীক্ষামূলক ট্রেনযাত্রাও করে। তারপরেই ঠিক হয় এ বছর আগস্ট থেকে ওই রুটে নিয়মিত যাতায়াত করবে নতুন ওই ট্রেনটি।