খুলনায় ১৭শ’ মসজিদ ও ময়দানে ঈদের জামাতের আয়োজন

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা বিশেষ প্রতিনিধি : পবিত্র ঈদ উল ফিতরের জন্য মহানগরী ও ৯ উপজেলার ৬৮টি ইউনিয়নে ১৭শ’ মসজিদ ময়দানে ঈদের জামায়াতের আয়োজন করা হয়েছে। জামায়াতে নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরা সহ প্রয়োজনীয় পুলিশ পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঈদ উল ফিতর উদযাপনের লক্ষ্যে বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহণ করতে জেলা প্রশাসন আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে এক সভার আয়োজন করেছে।
জেলা প্রশাসনের সূত্র জানান, সকাল সাড়ে আটটায় সার্কিট হাউজ ময়দানে ঈদের প্রথম ও প্রধান জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে। আবহাওয়া প্রতিকূলে থাকলে প্রথম জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে টাউন জামে মসজিদে। একই মসজিদে সকাল ৯টায় ঈদের দ্বিতীয় জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।
কেএমপি ও জেলা প্রশাসনের সূত্রমতে, খুলনা মহানগরী এলাকায় ১শ’৮৪টি এবং ৯ উপজেলায় ৮শ’৬২টি ঈদগাহ ও ৬শ’৪৬টি মসজিদে ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা পর্যায়ে নিরাপত্তার জন্য ৮শ’ ৫৬জন পুলিশ মোতায়ন করা হবে। গুরুত্বপূর্ন স্থানগুলোতে মেটাল ডিটেক্টর বসানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মহানগরীর এলাকার উল্লেখযোগ্য জামাত গুলোর মধ্যে আলিয়া কামিল মাদ্রাসা ময়দান, পিটিআই জামে মসজিদ, বায়তুল আমান জামে মসজিদ, ডাকবাংলা জামে মসজিদ, ইসলামপুর জামে মসজিদ, মিয়াপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, লায়ন্স স্কুল জামে মসজিদ, বাস টার্মিনাল জামে মসজিদ, বায়তুন নূর, বায়তুল মোকাররম, বায়তুল আমান, দারুস সালাম, সিদ্দিকীয়া, কাশিপুর ঈদগাহ ময়দান, খুলনা পলিটেকনিক ঈদগাহ ময়দান, নয়াবাটি ঈদগাহ ময়দান, বায়তুল ফাল্লাহ জামে মসজিদ, খালিশপুর ঈদগাহ ময়দান, মতি মসজিদ, নিরালা আবাসিক এলাকা, দৌলতপুর ঈদগাহ ময়দান, কুয়েট জামে মসজিদ, জিরোপয়েন্ট ঈদগাহ ময়দান, লবনচরা স্লুইচগেট আল আমিন জামে মসজিদ, মতিয়াখালী জামে মসজিদ, লবনচরা বিশ্বরোড ঈদগাহ ময়দান, মহেশ্বরপাশা বায়তুস সরাফ জামে মসজিদ ও নিউজপ্রিন্ট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ। কেএমপি’র উপ-পুলিশ কমিশনার রাশিদা বেগম জানান, সার্কিট হাউজ ময়দানে প্রয়োজনীয় সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। আলিয়া মাদ্রাসা, পিটিআই জামে মসজিদ, বায়তুন নূর, বায়তুল আমান, নিরালা আবাসিক এলাকায় প্রয়োজনীয় পুলিশ থাকবে। তিনি বলেন, নগরীর ঈদের বাজারে নিরাপত্তার জন্য ২ হাজার পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গোয়েন্দা) সি এ হালিম জানান, জেলায় ৮শ’ ৬২টি ও ৬শ’ ৪৬টি মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ঈদে দু’দিন পরবর্তী গুরুত্বপূর্ন স্থানগুলোতে পুলিশ মোতায়েন থাকবে। রূপসা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: ইলায়াসুর রহমান ও বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: কামরুজ্জামান জানান, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হবে। ঈদ উল ফিতরের কর্মসূচী প্রণয়নের লক্ষে আগামী সপ্তাহে সভা অনুষ্ঠিত হবে। ইসলামী ফাউন্ডেশনের খুলনা বিভাগীয় পরিচালক মো: লোকমান হোসেনের দেয়া তথ্যমতে, মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গনশিক্ষা কেন্দ্রের এক হাজার শিক্ষককে মাথাপিছু সাড়ে ৩ হাজার টাকা ঈদ বোনাস দেয়া হবে। তিনি বলেন, জঙ্গি প্রতিরোধে কোরআন হাদিসের আলোকে শান্তি শৃঙ্খলা স্থাপনের জন্য খুতবায় বক্তৃতা দিতে ইমামদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।