খুলনায় একুশের আলো ২৪ ডট কম পরিবারের পক্ষ থেকে মহান ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

বিশেষ প্রতিবেদক : রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালির রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল রাজপথ। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে বাংলার (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) ছাত্র, যুবসমাজসহ সর্বস্তরের মানুষ শাসকগোষ্ঠীর চোখ-রাঙানি ও প্রশাসনের ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে দৃপ্ত পায়ে রাজপথে নেমে আসে। সেদিন ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে শহীন হন সালাম, জব্বার, শফিক, বরকত ও রফিক।

তাদের এই আত্মদানের মধ্য দিয়ে স্বমহিমায় প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলা ভাষা। মায়ের ভাষার মর্যাদা অর্জনের পাশাপাশি বাঙালি রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রেও পায় নতুন প্রেরণা। আর এই বিজয়ের পথ বেয়ে সূচিত হয় বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন যার পরিণতি একাত্তরের স্বাধীনতাযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।

তাই একুশে ফেব্রুয়ারি শোকাবহ হলেও এর গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায় পৃথিবীর বুকে অনন্য। বিশ্বে একমাত্র বাঙালি জাতিই ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে। তাই এই দিনটি বাঙালির অহংকারের দিন। জাগরণের দিন। তবে এই অর্জন এখন শুধু বাংলাদেশেরই নয়, ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে পালিত হয় সারা বিশ্বে। ১৯৯৯ সালে ইউনেসকো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বাঙালির ভাষার সংগ্রামের একুশ এখন বিশ্বের সব ভাষাভাষীর অধিকার রক্ষার দিন।
শোক ও শ্রদ্ধায় ভাষা শহীদদের স্মরণ করছে জাতি।
একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে হাজারও মানুষের ঢল নামে খুলনার শহীদ মিনারে। ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে হাজির হয়েছেন নারী, পুরুষ, শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষ। সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, স্কুলের পাশাপাশি রাজনৈতিক সংগঠনগুলো শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করছেন। ছোট ছোট শিশুরাও পুষ্পস্তপক অর্পণ করেছে। ফুলে ফুলে ভরে গেছে শহীদ মিনার।

খুলনায় একুশের আলো ২৪ ডট কম এর পক্ষ থেকে সকাল ৮টায় ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করেন নিউজ পোর্টালটির সম্পাদক ও প্রকাশক সাজ্জাদুল কবীর। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন খুলনার বিশেষ সংবাদদাতা সৈয়দ মনিরুল ইসলাম, বিশেষ সংবাদদাতা(খুলনা সিটি) শেখ আজিজুর রহমান, স্টাফ রিপোর্টার মিজানুর রহমান, হরিনটানা প্রতিনিধি নাজমুল হাসান সবুজ, সদর থানা ফটো সাংবাদিক মো: ওবায়দুল হক, সাংবাদিক অমলেন্দু বিশ্বাস, কুমারেশ মন্ডলসহ অন্যান্য সাংবাদিকবৃন্দ।