খালেদার স্বাস্থ্য ‘ঝুঁকিতে নয়’, তবে বিএসএমএমইউতে ভর্তির পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুর্নীতি মামলায় কারাগারে বন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ নয় বলে জানিয়েছে তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ড। তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি পরামর্শও দেয়া হয়েছে।

পাঁচ সদস্যের ওই মেডিকেল বোর্ড রবিবার তাদের প্রতিবেদন হস্তান্তর করার পর রবিবার দুপুরে বিএসএমএমইউর পরিচালক আব্দুল্লাহ আল-হারুন এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার নতুন করে কোনও রোগ সৃষ্টি হয়নি। আগের যেসব শারীরিক সমস্যায় তিনি ভুগছিলেন, খালেদা জিয়া হাসপাতালে ভর্তি হতে চাইলে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলেই সেসবের চিকিৎসা দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা।’

খালেদার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে বোর্ডের চিকিৎসকরা কী পেয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘উনারা যেটা পেয়েছেন, নতুন কোনও সিরিয়াস উপসর্গ যোগ হওয়া, এটা হয়নি।’

‘খালেদা জিয়ার আগে থেকেই রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস (গেঁটে বাত) রয়েছে। সে কারণে দুই হাতে ও পিঠে ব্যথা অনুভব করেন। সে জন্য তাকে ব্যবস্থাপত্র দিয়েছেন চিকিৎসকরা।’

এছাড়া খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে হৃদযন্ত্র, রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসের কোনও সমস্যা পাওয়া যায়নি বলেও জানান বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের পরিচালক।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের সাজা নিয়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে পুরনো ঢাকার পরিত্যক্ত কারাগারে বন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। অসুস্থতার কারণে অন্যান্য মামলায় তিনি আদালতে হাজির হতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল জলিল চৌধুরীর নেতৃত্বে গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা শনিবার কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়াকে দেখে আসেন।

বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক হারিসুল হক, অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক আবু জাফর চৌধুরী, চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তারেক রেজা আলী ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বদরুন্নেসা আহমেদ।

এদিকে আগে যারা খালেদার চিকিৎসা করতেন, তাদের অন্তর্ভুক্ত করে নতুন করে মেডিকেল বোর্ড গঠনের পাশাপাশি তাকে ঢাকার ইউনাইটেড বা অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তির দাবি রয়েছে বিএনপি নেতাদের।

রবিবার দুপুরে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশাররফ হোসেন সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সরকার গঠিত মেডিকেল বোর্ড দিয়ে হবে না। ব্যক্তিগত চিকিৎসক না রেখে যে মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে তাতে আমরা হতাশ হয়েছি। এ বোর্ডের পরামর্শে বেগম জিয়ার সুচিকিৎসা হবে না।’

এর আগে গত ৯ সেপ্টেম্বর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করে খালেদা জিয়াকে বেসরকারি হাসপাতালে পাঠানোর অনুরোধ করেন। এরপর ১৩ সেপ্টেম্বর এই মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল জলিল চৌধুরীর নেতৃত্বে এই বোর্ডের সদস্যরা শনিবার কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়াকে দেখে আসেন।

Inline
Inline