খলিশাডুলীর দাস বাড়ীর ৩৫টি পরিবারকে মানবতার জীবন যাপন

এম এম কামাল, চাঁদপুর থেকে : চাঁদপুর পৌর সভার ১৩নং ওয়ার্ডের খলিশাডুলীর দাস বাড়ীর ৩৫টি পরিবারকে বিকল্প পথ না দিয়ে শত বছরের যাতায়াতের পথ পথ বন্ধ করায় তাদেরকে মারাত্মক মানবতার জীবন যাপন করতে হচ্ছে। এ নিয়ে তাদের প্রতিনিয়ত সীমাহীন দুর্ভোগের সাথে মোকাবেলা করে জীবন যাপন করতে হচ্ছে। বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই।
জানা যায়, খলিশাডুলীর শিশু পরিবারের সংলগ্ন দাস বাড়ির ৩৫টি পরিবার ব্রিটিশ আমল থেকেই শিশু পরিবারের উপর দিয়ে যাতায়াত করছে। শিশু পরিবারের নিরাপত্তা জন্য চলতি বছর চাঁদপুরের সাবেক দেশসেরা জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল ২২ জানুয়ারী দাস বাড়ির শত বছরের যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দেন। ঐ সময় তিনি ১৫ দিনের মধ্যে দাস বাড়ীর জন্য বিকল্প পথের ব্যবস্থা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুত করেন। জেলা প্রশাসকের প্রতিশ্রুতির প্রায় ৫ মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত বিকল্প পথ না পাওয়ায় ভুক্তভোগী ৩৫টি পরিবারের প্রায় ২শতাধিক পরিবারকে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা জীবন যাপন করতে হচ্ছে। এ নিয়ে তাদের দুর্ভোগের কমতি নেই।
দাস বাড়ীর প্রবীণ ব্যাক্তি শংকর চন্দ্র দাস জানান, ১২.২৪ একর সম্প্রতি ৮টি খতিয়ানে ২০ দাগে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের আমলে তার পূর্ব পুরুষ শিশু পরিবারকে সম্প্রতি দান করে। কালের বিবর্তনে এখন তারা শিশু পরিবারকে সম্প্রতি দান করে তাদের ২শতাধিক পরিবারকে যাতায়াত পথের জন্য তাদের বিভিন্ন শ্রেনীর পেশার মানুষের ধারস্থ হতে হচ্ছে।
তিনি জানান, শিশু পরিবারে তাদের শীতলা খোলা, শংকর পীরের খোলাসহ বিভিন্ন পূজার স্থানগুলো এখনো রয়েছে। সেখানেই পূর্ব পুরুষের ন্যায় তারাও এখানে পূজা আরাধনা করতেন। কিন্তু চলতি বছর ২২ জানুয়ারী পথটি বন্ধ করে দেওয়ার কারণে তাদের পূজা আরাধনা করতে মারাত্মক বেঘাত ঘটছে।
তিনি জানান, দাস বাড়ির ধারা এ পর্যন্ত শিশু পরিবারের কোন প্রকার ক্ষতি হয়নি। ভবিষ্যতেও হবেনা।
এ সময় তারা অনেকে দাবী করে বলেন, মায়ানমারের রোহিঙ্গাদের চেয়েও এখন তাদের বেশি কষ্ট করে দিনানিপাত করতে হচ্ছে। বাড়ির বিভিন্ন অনুষ্ঠান, বিপদ আপদে যাতায়াতের জন্য তাদেরকে বিভিন্ন ভ্রাম্যমান পথ অবলম্বন করতে হচ্ছে। বিষয়টি মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল।
তাই খলিশাডুলীর দাস বাড়ির জন্য বিকল্প পথ অতিদ্রুত ব্যবস্থা করার জন্য বর্তমান জেলা প্রশাসক, পৌর মেয়রসহ সর্বস্তরের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

Inline
Inline