কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাতুল রিমান্ডে

কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গুজব ও উসকানিমূলক তথ্য প্রচার অভিযোগের মামলায় সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন ওরফে রনি ওরফে রাতুলকে এক রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার দুই দিনের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় রমনা থানায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ফের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। অন্যদিকে রাতুলের আইনজীবী জায়েদুর রহমান রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম ফাহাদ বিন আমীন চৌধুরী এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে শুক্রবার এই মামলায় দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

আরো পড়ুন : আজ (সোমবার) রাত থেকেই মোবাইলে কলরেট বেড়ে যাচ্ছে

গত ৮ আগস্ট শাহবাগ এলাকায় পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার ঘটনায় ঢাকা মহানগর হাকিম ফাহাদ বিন আমিন চৌধুরী এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চলা আন্দোলনের সময় ফেসবুকে মিথ্যা তথ্য প্রচার, মৃত্যু, রগ কাটার গুজব ছড়ানো, উসকানিমূলক তথ্য প্রচার ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির অপচেষ্টাকারীদের মনিটরিং করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগ।

মনিটরিং শেষে ১১ এপ্রিল কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের পুলিশ উপ-পরিদর্শক এসএম শাহজালাল ‘অজ্ঞাতনামা’ আসামিদের বিরুদ্ধে রাজধানীর রমনা মডেল থানায় মামলা করেন। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ (সংশোধিত) ২০১৩ এর ৫৭(২)/৬৬ ধারায় মামলাটি করা হয়।

মামলায় আসামির সংখ্যা উল্লেখ্য না করলেও কোটা আন্দোলন নিয়ে গুজব ছড়ানো বিভিন্ন ফেসবুক আইডির নাম ও পোস্ট সংযুক্ত করা হয়।