এবার প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে যাননি বিএনপি নেতারা

ডেস্ক রিপোর্ট: সাধারণত দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দলীয় নেতাদের নিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে যান ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে। কিন্তু দুর্নীতি মামলায় তিনি কারাগারে থাকায় এবার মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে যাননি দলের নেতাদের।

তবে অন্যান্য বছরের মতো এবারও ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে প্রভাত ফেরিতে অংশ নেবেন বিএনপির নেতারা। এদিন সকালে শহীদ মিনারে ফুল দেবেন তারা।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সংবাদ সম্মেলনে দলের এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার রাতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) যেহেতু নেই। আমরা রাতে যাবো না। সকাল সাড়ে ৬টায় বলাকা সিনেমা হলের সামনে নেতাকর্মীদের থাকতে বলা হয়েছে। সেখান থেকে সবাইকে নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা প্রভাত ফেরিতে অংশ নেবেন।

প্রভাত ফেরিতে অংশ নিতে ইতিমধ্যে দলের ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বিএনপির পক্ষ থেকে।

২ কোটি ১০ লাখ টাকা ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা অনিয়মের অভিযোগে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ড পাওয়া খালেদা জিয়া বর্তমানে ঢাকার পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি। বকশিবাজারে স্থাপিত বিশেষ জেলা জজ আদালত গত ৮ ফেব্রুয়ারি ওই রায় ঘোষণা করে। ওই দিনই কারাগারে নেয়া হয় তাকে। ২০০৮ সালে দুদকের করা ওই মামলায় খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ আরও পাঁচ আসামির ১০ বছরের কারাদণ্ড হয়।

বিএনপির নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়া মুক্ত থাকলে প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে যেতেন। তবে সকালে দলের মহাসচিবসহ অন্য শীর্ষ নেতারা নেতাকর্মীদের নিয়ে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে যাবেন।

এদিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক বিবৃতিতে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ৫২-র ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হতে ভাষাশহীদরা প্রেরণার উৎস- এ কথা উল্লেখ করে বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করে তারা আত্মত্যাগের যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন, পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে তা আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। তাদের আত্মত্যাগের ধারাবাহিকতায় গণতান্ত্রিক ও স্বাধিকার আন্দোলনের পথ বেয়ে আমরা অবতীর্ণ হয়েছি স্বাধীনতা যুদ্ধে। প্রতিষ্ঠিত করেছি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘অধিকারবোধের চেতনায় পরিপূর্ণতা দান করেছিল মহান ২১ ফেব্রুয়ারি। সেই চেতনা নস্যাৎ করে একদলীয় শাসনের পাথর আজ জনগণের কাঁধের ওপর চাপানো হয়েছে। দুঃশাসনকে দীর্ঘায়িত করতে মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে (বিএনপির চেয়ারপারসন) বন্দি করা হয়েছে।’ একুশের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবিত করতে শিগগিরই বিএনপির চেয়ারপারসনকে মুক্ত করা হবে বলে দৃঢ় বিশ্বাস পোষণ করেন তিনি।