ঈদকে সামনে রেখে জমে উঠছে জুতার বাজার

এসএম বাচ্চু, তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা : ‘রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ’। আর মাত্র কয়েকদিন, এরপরই মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। অনেকেই ইতোমধ্যে ঈদে নতুন পোশাক কিনেছেন। এবার চাই নতুন পোশাকের সঙ্গে ম্যাচিং করে পছন্দের নতুন জুতা। বিশেষ করে ছোট বাচ্চারা নতুন জুতা নিয়ে কোনো ছাড় দিতে চায়ই না। তাই ছোট্ট সোনামনির মুখে হাসি ফোটাতে মার্কেটে মার্কেটে ছুটাছুটি করছেন মা-বাবা কিংবা বড়রা।
তালা উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে , বর্ণিল সাজে সেজেছে জুতার দোকানগুলো। সেই সাজ এখনো অব্যাহত আছে। ক্রেতারা সামর্থ্য অনুযায়ী বেছে নিচ্ছেন পছন্দের জুতার দোকান। নিম্ন মধ্যবিত্ত থেকে উচ্চবিত্ত, সবাই স্বাধ্যমতো জুতা কিনতে চান। আর এ জন্য রোজার ঈদে জুতার বাজার বেশ জমজমাট। বিক্রেতারা বলছেন, ঈদ উপলক্ষে রাজধানীবাসী নতুন জুতা কিনবেন চাঁদ রাত পর্যন্ত
এদিকে, ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে জুতার দোকানগুলোর জুতা পাচ্ছেন না তারা আবার ঢু মারছেন অনলাইন শপিংয়ে। সব মিলিয়ে ঈদের জুতার বাজারে চলছে রমরমা বাণিজ্য। শিশুদের স্যান্ডেল সো- ৩ শত টাকা ১০০ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। দুই ফিতার ছেলে শিশুদের আকর্ষণীয় বেন টেন-১০ স্যান্ডেলের মূল্য ২৫০ টাকা। দুই ফিতার ফ্ল্যাট স্যান্ডেল পাওয়া যাচ্ছে ২৫০ থেকে ৯০০ টাকার মধ্যে।
বিক্রয়কর্মী সাঈদ জানান, শেষের দিকে এসে বিক্রি হার ব্যাপকভাবে বেড়েছে। ক্রেতাদের এখন আর খুব বেশি মডেল দেখাতে হচ্ছে না। মোটামোটি পছন্দ হলেই নিয়ে যাচ্ছেন তারা।
এক ক্রেতা বলেন, এখন আর আগের মতো ঈদের আনন্দ হয় না। বাচ্চাদের আনন্দেই আমাদের আনন্দ। তাই স্বাধ্য মতো তাদের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করি। মূলত এথানে এসেছি বাচ্চাদের জন্য নতুন মডেলের জুতা কিনতে। বড় মেয়ের জুতা আগেই কেনা হয়েছে। এখন ছোট ছেলের নতুন পাজামা-পঞ্জাবির সঙ্গে চটি সেন্ডেলের খোঁজ করছি।
তবে ক্রেতা জানান, ঈদ উপলক্ষে সব পণ্যের দামই একটু বেশি। এক্ষেত্রে জুতার দাম আরো একটু বেশি। এছাড়া বিক্রেতারা ‘যার কাছ থেকে যত বেশি দাম রাখা যায়’-এই চেষ্টায় ব্যস্ত।

Inline
Inline