ইসরায়েলের সঙ্গে খেলছে না আর্জেন্টিনা

ক্রীড়া ডেস্ক : রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে নিজেদের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে আগামী ৯ জুন ইসরাইলের মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল আর্জেন্টিনার। সেই ম্যাচ খেলার জন্য বুধবার ইসরাইলে যাওয়ার কথা ছিল মেসিদের। কিন্তু ইসরাইল-ফিলিস্তিনের মধ্যেকার সংঘাতের কারণে নানাভাবে সমালোচিত হয় মেসিরা। যার কারণে ম্যাচটি বাতিল করে আর্জেন্টিনার ফুটবল ফেডারেশন।

বার্সেলোনাতে গতকাল মেসিদের অনুশীলন করার সময় মাঠের বাইরে হাজার হাজার মানুষ জেরুজালেমে না খেলার জন্য প্রতিবাদ করে। এমনকি রক্তের রঙে মাঠের চারপাশ রাঙ্গিয়ে দেয় প্রতিবাদকারীরা। পরে সেই বিষয়টি আর্জেন্টাইন ফুটবল সংস্থাকে। এরপরই ইসরায়েলের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচটি বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয় আর্জেন্টিনা।

ইসরায়েল জেরুজালেমকে তাদের চিরন্তন ও অবিভক্ত রাজধানী মনে করে। ফিলিস্তিনিরা পূর্ব জেরুজালেমকে তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে দাবি করে আসছে। ১৯৬৭ সালে যুদ্ধের সময় জেরুজালেম দখল করে ইসরায়েল। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দুই দেশের মধ্য সংঘাত চলে আসছে।

সর্বশেষ ‘গ্রেট মার্চ অব রিটার্ন’ আন্দোলনের অংশ হিসেবে গাজার শাসনক্ষমতায় থাকা হামাসের নেতৃত্বে ফিলিস্তিনিরা নিজ ভূমিতে ফেরত যাওয়ার অধিকারের দাবিতে গত ৩০ মার্চ থেকে গাজা সীমান্তে বিক্ষোভ শুরু করে। কয়েক সপ্তাহ ধরে চলা এই বিক্ষোভে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে শতাধিক ফিলিস্তিনি মারা যায়। আহত হয় সাড়ে ১০ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি।

এই অবস্থায় মেসিভক্তরা চায় না আর্জেন্টিনা ইসরাইলে খেলুক। এই সংগাতকে কেন্দ্র করে ফিলিস্তিনিরা আগেই নানাভাবে প্রতিবাদ করে মেসিকে আহ্বান জানিয়েছেন যেন ইসরাইলে না খেলে। এসব দিক চিন্তা করে শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় আর্জেন্টিনা।

তাদের এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে আর্জেন্টিনাকে ধন্যবাদ জানায় ফিলিস্তিনিরা।