ইকোনমিস্ট ইনটেলিজেন্সের গণতান্ত্রিক দেশের তালিকায় নেই বাংলাদেশ!

যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (ইআইইউ) বুধবার যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সেখানে ‘গণতান্ত্রিক’ কিংবা ‘ত্রুটিপূর্ণ গণতান্ত্রিক’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই।

 

গত এক দশক ধরে স্বৈরতান্ত্রিক ও ত্রুটিপূর্ণ গণতান্ত্রিক অবস্থার মাঝামাঝি ‘হাইব্রিড রেজিম’ তালিকায় দেশটি অবস্থান করছে বলে ইআইইউ বলছে।

 

তবে বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে ২০১৮ সালে বাংলাদেশের স্কোর আগের বছরের তুলনায় ০.১৪ বেড়েছে। ফলে ২০১৭ সালে যেখানে দেশটির অবস্থান ছিলো ৯২তম, পরের বছর হয়েছে ৮৮তম।

 

ইআইইউ প্রতিটি দেশকে গণতন্ত্র সূচক পরিমাপ করতে পাঁচটি মানদণ্ড ব্যবহার করে। সেগুলো হলো – নির্বাচনী ব্যবস্থা ও বহুদলীয় অবস্থান, নাগরিক অধিকার, সরকারে সক্রিয়তা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ, এবং রাজনৈতিক অংশগ্রহণ।

 

প্রত্যেকটি মানদণ্ডকে ০ থেকে ১০ স্কোরের মধ্যে হিসেব করে গড় করা হয়।

 

প্রাপ্ত স্কোরের ভিত্তিতে দেশগুলোকে চারটি ক্যাটেগরিকে ভাগ করা হয় – স্বৈরতন্ত্র, হাইব্রিড রেজিম, ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র এবং পূর্ণ গণতন্ত্র।

 

ইকোনমিস্টের গণতন্ত্র সূচক

স্কোর অনুযায়ী ক্যাটাগরি

৯-১০

 

পূর্ণ গণতন্ত্র

 

৭-৮

 

ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র

 

হাইব্রিড রেজিম ৫-৬

 

স্বৈরতন্ত্র ০-৪

 

সূত্র: ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট

এই হিসেব অনুযায়ী, একটি দেশকে “পূর্ণ গণতান্ত্রিক” অবস্থায় যেতে হলে গণতান্ত্রিক সূচকে ৯ থেকে ১০ স্কোর করতে হয়।

 

যেসব দেশের স্কোর ৭ থেকে ৮ সেসব দেশকে “ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র” বলা হয়েছে।

 

তবে এর নিচের অবস্থান “হাইব্রিড রেজিম”-এ তালিকাভুক্ত দেশগুলোর স্কোর ৫ থেকে ৬ এবং “স্বৈরতান্ত্রিক” দেশগুলোর স্কোর ০ থেকে ৪ এর মধ্যে।

 

১৬৭টি দেশের মধ্যে মাত্র ২০টি দেশ গণতন্ত্রের তালিকায়, ৫৫টি দেশ ত্রুটিপূর্ণ গণতান্ত্রিক দেশের তালিকায়, ৩৯টি দেশ হাইব্রিড রেজিমের তালিকায় এবং ৫৩টি দেশ স্বৈরতান্ত্রিক দেশের তালিকায় আছে।

 

কার্টেসী : বিবিসি বাংলা