আর নয়, যা হয়েছে যথেষ্ট: চীনের প্রতি ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বাণিজ্য যুদ্ধের মধ্যেই চীনের ২৮টি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির অভিযোগ, চীনের ওই প্রতিষ্ঠানগুলো জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিমদের ওপর নজরদারিতে সহায়তা করেছিল। ফলে প্রতিষ্ঠানগুলো ওয়াশিংটনের অনুমতি ছাড়া কোন মার্কিন পণ্যও কিনতে পারবে না।
সম্প্রতি উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ চলছে। এক দেশ অন্য দেশের ওপর আমদানি-রপ্তানিসহ বিভিন্ন ইস্যুতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে।

গত মাসে নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে চীনের বৃহত্তম টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান ‘হুয়াওয়েকে’ কালো তালিকাভুক্ত করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

চীনে সংখ্যালঘু উইগর মুসলিমদের ওপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের কারণে চীনা সরকারের তীব্র সমালোচনা রয়েছে। গত বছর জাতিসংঘের একটি কমিটি জানতে পেরেছে যে দশ লাখের মতো উইগর মুসলিমকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে কয়েকটি শিবিরে বন্দী করে রাখা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠন দাবি করেছিল যে এসব ক্যাম্পে তাদেরকে ‘নতুন করে শিক্ষা’ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু বেইজিং সরকারের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। দেশটির দাবি ক্যাম্পগুলো চরমপন্থার বিরুদ্ধে উন্মুক্ত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র।

গত কয়েক বছর ধরে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ চলছে। এই প্রসঙ্গে গত মে মাসে হোয়াইট হাউসে এক প্রশ্নোত্তরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন,‘‘চীন গত কয়েক দশক ধরে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে আমেরিকা থেকে অন্যায় অর্থনৈতিক সুবিধা নিচ্ছে। এতে আমেরিকা প্রচুর পরিমাণে ডলার হারাচ্ছে। প্রতি বছরে চীনে আমেরিকা থেকে ৪০ থেকে ৬০ হাজার কোটি ডলার হাতিয়ে নিচ্ছে। আর নয়। যা হয়েছে যথেষ্ট। এখন আমাদের অর্থনৈতিক অবস্থা অনেক ভালো। এখনই উপযুক্ত সময়। আমি ক্ষমতায় আসার পরপরই চীন থেকে শুল্কারোপের মাধ্যমে কয়েক শ কোটি ডলার পাচ্ছে আমেরিকা। এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’’