আবরার হত্যা: চার্জশিটে নতুন ৫ আসামি, পলাতক ৩

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার তদন্ত শেষ করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডে বুয়েটের ২৪ ছাত্রের সম্পৃক্ততা পেয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।
তদন্ত-সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়, মামলার এজাহারভুক্ত ১৯ জনের বাহিরেও চার্জশিটে যুক্ত হচ্ছেন নতুন ৫ আসামি। বুয়েটের শিক্ষক, শেরেবাংলা হলের প্রভোস্ট, চিকিৎসককে চার্জশিটে সাক্ষী হিসেবে রাখা হচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত এজাহারভুক্ত ৩ আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। ২৪ জনকে আসামি করেই আগামীকাল দুপুরের পর আদালতে চার্জশিট জমা দেওয়া হতে পারে।
জানা গেছে, চার্জশিটে যে ২৪ জনকে আসামি করা হচ্ছে তাদের মধ্যে ২১ আসামি কারাগারে রয়েছেন। এর মধ্যে এজাহারভুক্ত ১৬ জন এবং এজাহারের বাইরে ৫ জন। এজাহারভুক্ত ৩ আসামি এখনও পলাতক।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, আবরার হত্যা মামলার চার্জশিট প্রস্তুত করা হয়েছে। চার্জশিটে আসামি হিসেবে ২৪ জনের নাম রয়েছে। দুই-একদিনের মধ্যে চার্জশিট জমা দেওয়া হতে পারে।
তদন্ত-সংশ্নিষ্ট এক কর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়, গ্রেফতার আসামিদের মধ্যে এজাহারভুক্ত আটজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তাদের জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডে অপর আসামিদের সম্পৃক্ততাও উঠে এসেছে। এছাড়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দুজন সাক্ষী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।
সূত্র বলছে, যে ২৪ জনকে আসামি করা হচ্ছে তাদের মধ্যে ১১ জন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে ছিলেন। অপর আসামিরাও ছাত্রলীগের কর্মী বা সমর্থক। চার্জশিটে কার কী ভূমিকা তা উল্লেখ করা হয়েছে।
গত ৬ অক্টোবর রাতে শেরেবাংলা হলে নিজ কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা নৃশংসভাবে পিটিয়ে হত্যা করেন আবরার ফাহাদকে। পরের দিন তার বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে রাজধানীর চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
এ মামলায় এখন পর্যন্ত ২১ জনকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এর মধ্যে ১৬ জনের নাম মামলার এজাহারে রয়েছে। এজাহারের বাহিরে আটক ৫ জন হলেন—মুন্না, অমিত সাহা, মিজান, রাফাত ও সেতু। পলাতক তিনজন হলেন—মো. জিসান, মোর্শেদ ও এহতেশামুল তানিম।
আবার হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত আট আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা হলেন—নাজমুস সাদাত, ইফতি মোশাররফ সকাল, মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, অনিক সরকার, মুজাহিদুর রহমান, মেহেদি হাসান রবিন, তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর ও মনিরুজ্জামান মনির।
তদন্তকারী কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে চার্জশিটে ২৪ জনকে আসামি করা হচ্ছে। এরা হলেন—মেহেদী হাসান রাসেল, মুহতাসিম ফুয়াদ, অনিক সরকার, মেহেদী হাসান রবিন, ইফতি মোশররফ সকাল, মনিরুজ্জামান মনির, মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, অমিত সাহা, মাজেদুল ইসলাম, মুজাহিদুর রহমান, তাবাখারুল ইসলাম তানভীর, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মো. জিসান, আকাশ হোসেন, শামীম বিল্লাহ, এ এস এম নাজমুস সাদাত, এহতেশামুল রাব্বি তানিম, মো. মোর্শেদ, মোয়াজ আবু হুরায়রা, মুনতাসির আল জেমি, মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, ইশতিয়াক আহমেদ মুন্না এবং এস এম মাহমুদ সেতু।