আত্রাই-ভবানীগঞ্জ সড়কটি দুর্ভোগের আরেক নাম

রুহুল আমিন, আত্রাই (নওগাঁ) সংবাদদাতা : নওগাঁর আত্রাই-ভবানীগঞ্জ সড়কের প্রায় ৬ কিলোমিটার সড়ক যেন ধানের জমিতে পরিণত হয়েছে। দুর্ভোগের আরেক নাম এই আত্রাই-ভবানীগঞ্জ সড়ক। আত্রাই থেকে বাগমারা হয়ে রাজশাহী যাওয়ার একমাত্র পথ এই সড়ক নামের মরণফাঁদ রাস্তাটি।
সূত্রে জানা, দীর্ঘদিন থেকে প্রয়োজনীয় সংস্কারের অভাবে ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে এ সড়কটি বর্তমান সময়ে চলাচলের জন্য অযোগ্য হয়ে পড়েছে। আত্রাই সীমানা থেকে বাগমারা সীমানা পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার রাস্তা মেরামত না করায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাধ্য হয়েই চলাচল করছে বিভিন্ন ছোট-বড় যানবাহন। আর মাঝে মধ্যে ঘটে যাওয়া ছোট-বড় দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছে নিরীহ পথচারীরা। সংস্কারের অভাবে রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই ওই সব গর্তে পানি জমে যায়। ফলে পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। অথচ নওগাঁর আত্রাই উপজেলা ও রাজশাহীর বাগমারা উপজেলাসহ উত্তরাঞ্চল এলাকার লোকজনের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এর সাথে যোগাযোগের জন্য একটিমাত্র পথ এই রাস্তাটিই ব্যবহার করতে হয়। জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হওয়ার পরও তা সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের। জাতাপুকুর গ্রামের ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা চালক আব্দুর রহমান বলেন, এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য ছোট বড় যানবাহন চলাচল করে থাকে, কিন্তু সড়কটি খানাখন্দ হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করা ছাড়া আমাদের আর কোন উপায় নেই। এতে রাস্তার মাঝে প্রায় যানবাহন বিকল হয়ে পড়ে। গাড়ী কোথাও কোথাও আবার উল্টে গিয়ে হতাহতের ঘটনা ঘটেই চলেছে।
অটো-ভ্যানচালক মোবারক হোসেন বলেন, এ রাস্তায় ভ্যান চালানোতে একদিকে জীবনের ঝুঁকি অপরদিকে ভ্যানের যন্ত্রাংশও খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। তারপরও পেটের দায়ে আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এ রাস্তায় ভ্যান চালিয়ে আসছি দীর্ঘদিন যাবত।
সালেহা-ইমারত ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক মোঃ রুহুল আমীন বলেন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শত শত শিক্ষার্থী এবং সর্বস্তরের জনসাধারণের যাতায়াত এই বিপদগামী রাস্তা দিয়েই করে থাকেন। বৃষ্টিতে রাস্তায় পানি জমে থাকার কারণে প্রায়ই যানবাহনের চাকার পানি ছিটকে শিক্ষার্থীসহ সকলের পোষাক পরিচ্ছদ নষ্ট হয়ে যায়। এতে করে চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হয় পথচারীদের।
আত্রাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো: একরামুল বারী রুঞ্জু বলেন, এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তা। তাই বৃহত্তর স্বার্থে অতিদ্রুত রাস্তাটি প্রয়োজনীয় সংস্কারের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
নওগাঁ সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: হামিদুল হক বলেন, রাস্তাটির বেহাল দশা সম্পর্কে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে সংস্কারের জন্য একনেকে অনুমোদন হয়েছে। অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে কাজ শুরু হবে বলে আশা করছি।

Inline
Inline