আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে দুই শিক্ষককে তুলে নেয়ার অভিযোগ

রাজশাহী : সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলা থেকে দুই কলেজ শিক্ষককে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে উপজেলার অনুপমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে থেকে একটি মাইক্রোবাসে করে তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

তারা হলেন চারঘাটের ডাকরা ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক বজলুর রহমান এবং ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক শফিকুর রহমান উজ্জ্বল। বজলুর রহমান উপজেলার রায়পুর গ্রামের আসমত আলীর ছেলে। আর শফিকুর আস্করপুর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

ডাকরা কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ তাদের তুলে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে তিনি জানান, কলেজের ক্লাস শেষে মোটরসাইকেলযোগে চারঘাটে যাচ্ছিলেন বজলুর রহমান ও শফিকুর রহমান। তারা চারঘাট-আড়ানী সড়কের অনুপমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছলে কয়েকজন ব্যক্তি কালো রঙের একটি মাইক্রোবাস থেকে নেমে তাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয় দেন। এরপর ওই মাইক্রোবাসে করেই তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

অধ্যক্ষ জানান, প্রত্যক্ষদর্শীরা দুই শিক্ষককে চারঘাটের দিকে নিয়ে যেতে দেখেছেন। তারা যে মোটরসাইকেলে চড়ে যাচ্ছিলেন সেটি সেখানেই রেখে দেওয়া হয়। তুলে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তাদের কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি মৌখিকভাবে চারঘাট থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে।

অপহৃত কলেজ শিক্ষক বজলুর রহমানের ছোট ভাই মোজাহেদুল ইসলাম বলেন, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, আমার ভাই গ্রামের বাড়িতে থাকতেন না। তিনি সারদা এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন।

শফিকুর রহমানের ছোট ভাই মিলন বলেন, তার ভাইকে ঠিক কী কারণে বা কারা উঠিয়ে নিয়ে গেছেন, তা তিনি জানেন না।

রাজশাহী জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পরিদর্শক খালিদ হোসনে বলেন, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে ডিবি পুলিশ তাদের আটক করেনি। চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, কলেজ কৃর্তপক্ষের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ মাহাবুবুল আলম জানান, র‌্যাব এ ধরনের কোনো অভিযান ওই এলাকায় পরিচালনা করেনি। তাই বিষয়টি তিনি জানেন না।