আইএস প্রধান বাগদাদি জীবিত না মৃত?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : তিন বছর আগে মধ্যপ্রাচ্যের কথিত জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট(আইএস)’র প্রধান আবু বকর আল বাগদাদির এক ভিডিও প্রকাশ পায়, যেখানে মসুল শহরের গ্র্যান্ড আল নুরি মসজিদে খুৎবা দিতে দেখা যায়।
ইরাকের মসুল শহরের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস তাদের ‘খেলাফত’ প্রতিষ্ঠা হয়েছে বলে ঘোষণা দেয়।
আইএস সেইসময় অনেক বড় বড় অঞ্চল তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়েছিল। কিন্তু সেই সময় থেকেই এই জিহাদি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী লড়াই শুরু হয় এবং আস্তে আস্তে তারা বিভিন্ন অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ হারাতে শুরু করে।কিন্তু আবু বকর আল বাগদাদি নামে আইএস এর ওই নেতা, যার সন্ধান পাওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ২৫ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করে রেখেছে- সেই ব্যক্তির এখন কোথায় বা কী করছে বা তার সঙ্গে কিছু ঘটেছে কিনা সে বিষয়টি এখনো রহস্যই রয়ে গেছে।
আবু বকর আল বাগদাদি শেষবারের মতো প্রকাশ্যে আসার তিন বছর পার হয়েছে, কিন্তু গত কয়েক বছরে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস তাদের কথিত খেলাফতের একটা বিরাট অংশের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে।
রুশ এবং মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের দ্বিমুখী আক্রমণের মুখে তারা এখন বেশি চাপের মধ্যে আছে।
২০১৪ সালের ওই ভিডিওর পরে আল বাগদাদির কোনো কথা শোনা যায়নি।
তবে গত বছর নভেম্বর মাসে যখন ইরাকি সেনাবাহিনী মসুল পুনর্দখলের লড়াই শুরু করে তখন আল বাগদাদির একটা অডিও বার্তা প্রকাশ করে আইএস। জঙ্গি গোষ্ঠীটির পক্ষ থেকে বলা হয় আবু বকর আল বাগদাদি অজ্ঞাত স্থান থেকে তার অনুসারীদের আহ্বান জানিয়েছেন তারা যেন লড়াইয়ে পিছু না হটে।
আর এরই মধ্যে এই রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই দাবিও করা হয় যে আইএস প্রধান আল বাগদাদি হয়তো রাকায় চালানো রুশ বিমান হামলায় নিহত হয়েছে।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, গত ২৮ মে রাকায় ইসলামিক স্টেটের এক কথিত গোপন সভাস্থল লক্ষ্য করে রুশ বিমান হামলা চালানো হয়। ওই হামলায় ৩৩০ জনের মতো ইসলামিক স্টেট যোদ্ধা নিহত হয়। এদের মধ্যে হয়তো আবু বকর আল বাগদাদিও ছিল এবং সেটা যাচাই করে দেখা হচ্ছে বলে জানায় রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।
আল বাগদাদির মৃত্যু নিয়ে এ রকম জল্পনা ওটাই প্রথম ছিল না। এর আগেও কয়েকবার তার মৃত্যুর গুজব ছড়িয়েছিল। তবে রাশিয়ার দিক থেকে আল বাগদাদির মৃত্যুর দাবি ওটাই ছিল প্রথম।
এর আগে গণমাধ্যমে বেশ কয়েকবার এ রকম খবর বেরিয়েছিল যে মার্কিন নেতৃত্বাধীন হামলায় বিমান হামলা বাগদাদি নিহত হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তা তখন জানিয়েছিলেন, বাগদাদি নিহত হয়েছেন কিনা সেটা তারা নিশ্চিত করতে পারছেন না।
এমনকি গত সপ্তাহে ইরানের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, তিনি নিশ্চিত আল বাগদাদি নিহত হয়েছেন।এই দাবি নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা।
তালেবান নেতা মোল্লা ওমরের মৃত্যুর খবরটি তালেবান ও আল কায়েদা প্রায় দুই বছর পর্যন্ত লুকিয়ে রেখেছিল। আইএস এর কোনঠাসা পরিস্থিতিতে তাদের নেতা বাগদাদির উপস্থিতি গোষ্ঠীটির অনুসারী ও বিরোধী বা শত্রু দুইপক্ষকেই ভাবিয়ে তুলেছে।
আবু বকর আল বাগদাদি কে?
আবু বকর আল বাগদাদির আসল পরিচয় কী তা নিয়ে অনেক বিতর্ক রয়েছে। আল বাগদাদি তার আসল নাম নয় বলে মনে করা হয়। ধারণা করা হয়, ১৯৭১ সালে বাগদাদের উত্তরে সামারা এলাকায় আল বাগদাদির জন্ম।
২০০৩ সালে যখন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ইরাকে সামরিক অভিযান চলে, তখন বাগদাদি বাগদাদের কোন একটি মসজিদের ইমাম ছিলেন বলে দাবি করা হয় কোন কোন রিপোর্টে।
অনেকের বিশ্বাস, সাদ্দাম হোসেনের শাসনামলেই আল বাগদাদি জঙ্গি জিহাদীতে পরিণত হয়েছিল। তবে অন্য অনেকের ধারণা, যখন তাকে দক্ষিণ ইরাকে একটি মার্কিন সামরিক ক্যাম্পে চার বছর আটকে রাখা হয়েছিল তখনই আসলে আল বাগদাদি জঙ্গিবাদে দীক্ষা নেয়। এই ক্যাম্পে অনেক আল কায়েদা কমান্ডারকে বন্দী রাখা হয়েছিল।
আল বাগদাদি পরে ইরাকে আল কায়েদার নেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়। পরে অবশ্য ইরাকের আল কায়েদা নিজেদেরকে ২০১০ সালে ‘ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড লেভান্ট’ বলে ঘোষণা করে।
২০১১ সালের অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্র আল বাগদাদিকে সন্ত্রাসী বলে ঘোষণা করে। তাকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য ২৫ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করা হয়।
সূত্র: বিবিসি