অসুস্থতার কারণে শপথ নেননি সৈয়দ আশরাফ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : একাদশ জাতীয় সংসদের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ২৫৬ জন শপথ নিতে পারলেও অসুস্থতার কারণে শপথ নেননি জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে তিনি নির্বাচিত হন। এর আগে গুরুতর শারীরিক অসুস্থতার কারণে গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর সংসদ থেকে ৯০ দিনের ছুটি নিয়েছিলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনের শপথ কক্ষে চার ধাপে ২৮৯ জন শপথ নেন। প্রথমে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংবিধান ও কার্যপ্রণালীবিধি অনুযায়ী প্রথমে নিজে শপথ গ্রহণ করেন এবং শপথ বইয়ে স্বাক্ষর করেন। পরে অন্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ছাড়াও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ, বিএনপির ৫ জন ও ঐক্যফ্রন্টের ২ জন শপথ নেননি। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (বগুড়া-৬), মোশারফ হোসেন (বগুড়া-৪), মো আমিনুল ইসলাম (চাঁপাইনবাগঞ্জ-২), মো. হারুন উর রশীদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩), জাহিদুর রহমান জাহিদ (ঠাকুরগাাঁও-৩), ঐক্যফ্রন্টের সুলতান মো. মনসুর (মৌলভীবাজার-২) ও মোকাব্বির খান (সিলেট-২) শপথ নেননি।

সৈয়দ আশরাফ গুরুতর অসুস্থ হয়ে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের বামরুনগার্ড হাসপাতালের ক্রিটিক্যাল কেয়ার মেডিসিন ইউনিটে ভর্তি ছিলেন।
নির্বাচন কমিশন গত মঙ্গলবার একাদশ জাতীয় সংসদের ২৯৮টি আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নাম এবং পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা সম্বলিত গেজেট নোটিফিকেশন প্রকাশ করে। এর আগে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী এক প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে গাইবান্ধা-৩ আসনের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।

নির্বাচনের দিন ব্রাক্ষণবাড়িয়া-২ আসনের তিনটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ায় ওই আসনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি।

উল্লেখ্য, ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পেয়েছে ২৫৭টি আসন। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ২২টি আসন। বিএনপি পেয়েছে ৫টি আসন। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পাটি (বাসদ) পেয়েছে ৩টি আসন, গণফোরাম ২টি, বিকল্প ধারা বাংলাদেশ ২টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ২টি, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন ১টি, জাতীয় পার্টি (জেপি) ১টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৩টি আসনে জয়ী হন।