অমর একুশে গ্রন্থমেলায় স্থান পেয়েছে গাইবান্ধা পলাশবাড়ীর জাহাঙ্গীর কবির জুয়েল

গাইবান্ধা থেকে আঃ খালেক মন্ডলঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার তরুন কবি সাহিত্যিক জাহাঙ্গীর কবির জুয়েলের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘মোহমায়া’ অমর একুশের গ্রন্থমেলায় স্থান পেয়েছে বলে সংশিষ্ট সূত্রে জানা যায়। তাঁর বাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের কাতুলী গ্রামে। ওই গ্রামের বাসিন্দা পিতা মোঃ ওয়ারেছ মন্ডল, মাতা মোছাঃ জাহানারা বেগমের পুত্র জুয়েল। প্রকৃত পক্ষে জাহাঙ্গীর কবির জুয়েল একজন কৃষিবিদ। বর্তমানে তিনি প্রজাতন্ত্রের কর্মে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে কর্মরত আছেন। তার গ্রন্থ কাব্যে বাংলা সাহিত্যের কবিতার অবস্থান স্বতন্ত্র ও সার্বজনীন ভাবে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এতে উলেখ করা হয় প্রাচীন যুগ থেকে কবিতাই সাহিত্যের মূল উপাদান। পরিবেশ প্রকৃতির মতোই সময়ের স্রোতে বিবর্তনের ধারায় কবিতায়ও এসেছে অনেক রূপ-বিবর্তন, পরিবর্তন ও পরিমার্জন। আর বর্তমানের এই শহর সভ্যতা হলো কবিতার আধুনিক যুগ। স্বমহিমায় ভাস্বর কবি জাহাঙ্গীর কবির জুয়েল তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘মোহমায়া’-এর মাধ্যমে কবিতার এই আধুনিক ও নতুন ধারা সৃষ্টির প্রয়াস দেখিয়াছেন। এই কাব্যগ্রন্থটি দু’টি অংশে রচিত। একটি কবিতা, অন্যটি অনুকাব্য’। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও গাইবান্ধার জেলার গুণী এই কৃতি সন্তানের বইটি পাওয়া যাচ্ছে একুশে গ্রন্থমেলাতে। কাব্যগ্রন্থটি মুক্তভাষ ফাউন্ডেশন থেকে প্রকাশিত। বিশ্ব সাহিত্য ভবনের ছয় নম্বর চত্তরে ৩৪-৩৫২ নম্বর স্টলে। কাব্যগ্রন্থটি কবির প্রথম প্রকাশনা হলেও ইতোমধ্যে পাঠক সমাজে ব্যাপক সমাদৃত হয়েছে।